Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১১:২৯ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ১৫ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

মোদীর সঙ্গে খালেদার বৈঠকের কোন সুযোগ নেই : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী বলেছেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আসন্ন বাংলাদেশ সফরের সময় তার সঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বৈঠকের কোনো সুযোগ নেই।তিনি বলেন, নরেন্দ্র মোদির সফরে ঢাকা-নয়াদিল্লির সম্পর্ক নতুন মাত্রায় উন্নীত হবে।
শুক্রবার সকালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফর উপলক্ষে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী গণমাধ্যমকর্মীদের ব্রিফ করেন। এ সময় তিনি এসব কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ভারত বাংলাদেশের পুরানো বন্ধু ও নিকটতম প্রতিবেশী। বাংলাদেশের দুর্দিনে ভারত বিভিন্নভাবে সহায়তা করেছে।  নরেন্দ্র মোদি বলেছিলেন, তিনি স্থলসীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়ন করবেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী তার কথা রেখেছেন। এটা সবচেয়ে বড় পাওয়া।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, নরেন্দ্র মোদিকে অভ্যর্থনা জানানোর জন্য ঢাকা প্রস্তুত। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ৬ জুন ৩৬ ঘণ্টার সফরে ঢাকা আসছেন। তার এ সফরে দুই দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সকল বিষয়ে আলোচনা হবে।
এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, নরেন্দ্র মোদীর আসন্ন সফরে তিস্তা চুক্তি সইয়ের সম্ভাবনা নেই। অপর প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ট্রানজিটের মাশুল পাবে বাংলাদেশ, তবে হার চূড়ান্ত হয়নি এখনো।

তিনি জানান, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আসন্ন বাংলাদেশ সফরের সময় তার সঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বৈঠকের কোনো সুযোগ নেই। মোদি-খালেদার বৈঠক বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মনে হয়না সুযোগ আছে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বহু প্রতিক্ষীত স্থলসীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং নরেন্দ্র মোদি একটি সম্মতিপত্রে স্বাক্ষর করবেন। এ ছাড়া দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী একটি যৌথ ইশতেহারেও স্বাক্ষর করবেন।
তিনি আরও বলেন, নরেন্দ্র মোদি আসার পর স্থলসীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়ন করতে দুই দেশ একটি সম্মতিপত্রে অনুস্বাক্ষর করবে। এর পর ছিটমহল বিনিময় শিগরিই শুরু হবে। এ বিষয়ে দুই দেশই দুই দেশকে তালিকা দেবে। এর পর দুই দেশের কমিটি মিলে মাঠপর্যায়ে কাজ করবে।
মাহমুদ আলী বলেন, মুক্তিযুদ্ধে অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীকে সম্মাননা দেয়া হবে। ঢাকায় অবস্থিত ভারতীয় হাইকমিশনের উদ্যোগে বিশিষ্টজনদের নিয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী মোদি বক্তৃতা দেবেন। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, নিরাপত্তা, যোগাযোগ, প্রযুক্তি, পানি, অবকাঠামো খাতে সমাঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করা হবে।