Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৫:০৬ ঢাকা, শনিবার  ১৭ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

মেয়র আরিফ কেন লাপাত্তা!

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়রের চেয়ার শূন্য। নির্বাচিত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী কোথায় আছেন বলতে পারছেন না কেউ।  মেয়রের ব্যবহৃত ব্যক্তিগত মোবাইল ফোন বন্ধ। মেয়রের বর্তমান অবস্থান নিয়ে মুখ খুলতে নারাজ নগর ভবনের কর্মকর্তারাও। মেয়র না থাকায় নগর ভবনের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে বলে দাবি সংশ্লিষ্টদের। সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এস এম কিবরিয়া হত্যা মামলার সম্পূরক চার্জশিটে আসামি হওয়ার পর থেকে মেয়র আরিফকে জনসমক্ষে দেখা যাচ্ছে না। তবে নগর ভবনের একটি সূত্র জানিয়েছে, হয়তোবা উচ্চ আদালত থেকে আগাম জামিন নেওয়ার জন্য তিনি ঢাকায় অবস্থান করছেন। ১৩ নভেম্বর হবিগঞ্জ আদালতে সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যা মামলার সম্পূরক চার্জশিট জমা দেন তদন্ত কর্মকর্তা এএসপি মেহেরুন্নেসা। ওই চার্জশিটে সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী ও হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র জি কে গৌছসহ নতুন ১১ জনকে আসামি করা হয়। সম্পূরক চার্জশিটে আসামি হওয়ার পর থেকে উধাও হয়ে যান মেয়র আরিফ। ওই দিন থেকে বন্ধ পাওয়া যায় তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন। পরদিন থেকে নগর ভবনে আসাও বন্ধ হয়ে যায় তার।

কিবরিয়া হত্যা মামলা থেকে সিসিক মেয়র আরিফের নাম প্রত্যাহারের দাবিতে সিলেটে হরতালসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। ১৫ দিনের কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নেমেছেন বিএনপি ও জামায়াতপন্থি কাউন্সিলররা। গতকাল তারা দুই ঘণ্টার কর্মবিরতিও পালন করেছেন। এর আগে তারা একই দাবিতে প্রতীকী অবস্থান কর্মসূচি, মানববন্ধন ও গণস্বাক্ষর সংগ্রহ কর্মসূচি পালন করেন।  সূত্র জানায়, হয়তোবা সম্পূরক চার্জশিটে নাম অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর গ্রেফতার আতঙ্কে সিলেট ছাড়েন মেয়র আরিফ। এখন তিনি উচ্চ আদালত থেকে আগাম জামিন নেওয়ার চেষ্টা করছেন। কিন্তু গতকাল পর্যন্ত জামিন নেওয়া সম্ভব হয়নি। উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়ে আরিফ নগর ভবনে ফিরবেন বলে জানা গেছে। মেয়র আরিফের বর্তমান অবস্থান সম্পর্কে জানতে চাইলে নগর ভবনের কর্মকর্তারা কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

Like & share করে অন্যকে দেখার সুযোগ দিন