ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৪:২৯ ঢাকা, বুধবার  ১৯শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ডিএমপি
ডিএমপি

মৃত্যুর কারণ ও ধরন মিডিয়াকে জানাতে পুলিশের আপত্তি

ময়নাতদন্ত শেষে নিহতদের মৃত্যুর কারণ ও ধরন সম্পর্কে গণমাধ্যমে বিস্তারিত তথ্য দেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালসহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে যাতে এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য দেওয়া না হয় সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ডিএমপির পক্ষ থেকে স্বাস্থ্য অধিদফতরকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। ডিএমপির পক্ষ থেকে চিঠি পাওয়ার পর স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালসহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে এ বিষয়ে সংক্ষিপ্ত তথ্য দিতে বিশেষ নির্দেশনা দিয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

গত ২৫ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালকের কাছে দেওয়া চিঠিতে ঢাকা মহানগর পুলিশের কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া উল্লেখ করেন, ‘সম্প্রতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের কোনও কোনও চিকিৎসক মৃত ব্যক্তির ময়নাতদন্ত শেষে নিহত ব্যক্তির শরীরে থাকা আঘাতের চিহ্ন ও ধরণ এবং মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াতে বিস্তারিত বর্ণনা দিচ্ছেন। বিশেষ করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানে নিহত ব্যক্তিদের মৃত্যুর কারণ ও ধরণ এবং তার শরীরে কতটি গুলির চিহ্ন, কতটি গুলি পেছন দিক দিয়ে ও কতটি সামনে থেকে শরীরে বিদ্ধ হয়েছে তার সবিস্তারে বর্ণনা মিডিয়াতে তুলে ধরা হয়েছে।’

চিঠিতে বলা হয়, ‘বিশেষজ্ঞদের মতামত হিসেবে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন মামলার গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষ্য। একটি মামলার তদন্তকালে সংগৃহীত তথ্য, উপাত্ত, সাক্ষ্য ইত্যাদি গোপন দলিল হিসেবে গণ্য। তথ্য অধিকার আইন-২০০৯  এর গোপনীয়তা নিশ্চিত করা হয়েছে। এক্ষেত্রে বিস্তারিত তথ্য উপাত্ত মিডিয়াতে উপস্থাপন করা বিধি বিধানের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। তছাড়া বিভিন্ন সময়ে নিহত ব্যক্তির সামনে পেছনে কতটি গুলির চিহ্ন রয়েছে তা উল্লেখ করায় জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে। এমতাবস্থায় ময়নাতদন্ত শেষে নিহত ব্যক্তির মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দিলে এবং আঘাতের ধরণ সম্পর্কে বিস্তারিত প্রতিবেদন না দিলে তদন্তের গোপনীয়তা যেমন রক্ষা হবে, তেমনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কার্যক্রম সম্পর্কে বিভ্রান্তি সৃষ্টির সুযোগও কমে যাবে।’

ডিএমপির পক্ষ থেকে দেওয়া চিঠি পাওয়ার পর গত ৬ নভেম্বর স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালসহ সারাদেশের সকল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে এ ব্যাপারে চিঠি দিয়ে বিশেষ নির্দেশনা দেওয়া হয়।

ডিএমপির চিঠির সূত্র দিয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (প্রশাসন) ডা. সমীর কান্তি সরকার স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, ‘ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের পত্রের পরিপ্রেক্ষিতে জানানো যাচ্ছে যে, মেডিক্যাল কলেজ, মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল, জেলা সদর হাসপাতালসমূহে মৃতদেহের ময়নাতদন্ত শেষে বিশেষজ্ঞের মতামত হিসেবে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন মামলার গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষ্য এবং গোপনীয় দলিল হিসেবে গণ্য করা হয়। তাই নিহত ব্যক্তির মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াতে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। এতে মহাপরিচালকের অনুমোদন রয়েছে।’ সূত্রঃ বাংলা ট্রিবিউন।

http://www.banglatribune.com/national/news/155405/%E0%A6%AA%E0%A7%81%E0%A6%B2%E0%A6%BF%E0%A6%B6%E0%A6%BF-%E0%A6%85%E0%A6%AD%E0%A6%BF%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%87-%E0%A6%AE%E0%A7%83%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A7%81-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%A3-%E0%A6%93-%E0%A6%A7%E0%A6%B0%E0%A6%A3-%E0%A6%9C%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A7%8B-%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A7%87-%E0%A6%A8%E0%A6%BE