ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৬:১১ ঢাকা, রবিবার  ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

‘মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা ও বঙ্গবন্ধুকে না মানলে অস্তিত্ব থাকবে না বিএনপির’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এমপি বলেছেন, বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া কখনো দেশের মুক্তিযুদ্ধকে সমর্থন করেননি এবং আর কখনো সমর্থন করবেনও না। খালেদা জিয়া তার অবস্থান থেকে একটুকুও সরে আসেন নি উল্লেখ করে তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া যুক্তরাজ্য থেকে দেশে ফিরে মুক্তিযুদ্ধকে বিতর্কিত করার চেষ্টায় লিপ্ত হয়েছেন। যা দেশের মানুষ ভালভাবে নেয়নি। আশরাফ আরো বলেন, যারা দেশের মুক্তিযুদ্ধ মানে না, দেশে তাদের রাজনতি করার কোন অধিকার থাকতে পারে না। সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম আজ বিকেলে রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিলকে সফল করার লক্ষ্যে আয়োজিত সম্পাদক মন্ডলীর এক বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন। এ সময় আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ এমপি, এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম এমপি, মিসবাহউদ্দিন সিরাজ, বীর বাহাদুর ঊশে সিং, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ড. আব্দুর রাজ্জাক, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, শিল্প সম্পাদক আব্দুস সাত্তার, স্বাস্থ্য সম্পাদক ডা. বদিউজ্জামান ভূইয়া ডাবলু, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক দেওয়ান শফিউল আরেফিন টুটুল, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এডভোকেট আফজাল হোসেন ও উপ-প্রচার সম্পাদক অসীম কুমার উকিল উপস্থিত ছিলেন। সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এমপি বলেন, বিএনপি বাস্তবমুখী রাজনীতি না করলে এবং দেশের মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা ও বঙ্গবন্ধুকে না মানলে তাদের অস্তিত্ব থাকবে না। তিনি বলেন, বাস্তবতা বিবর্জিত রাজনীতি করার কারণে দেশের অনেক রাজনৈতিক দলের অস্তিত্ব বিলীন হয়ে গেছে। এ সত্য বুঝতে ব্যর্থ হলে বিএনপির অবস্থাও তাই হবে। আশরাফ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে বিএনপি আগামী নির্বাচনে অংশ নেবে। তারা গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মতো আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন বয়কট করলে রাজনৈতিক দল হিসেবে তাদের অস্তিত্ব থাকবে না। বিএনপি সঠিক পথে আসবে বলে আশাবাদ প্রকাশ করে তিনি বলেন, হঠকারী রাজনীতি করলে তাদের অবস্থা দেশের বামপন্থী দলগুলোর মতো হবে। জাতীয় পার্টির বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আওয়ামী লীগের অবস্থান সম্পর্কে জানতে চাইলে সৈয়দ আশরাফ বলেন, আওয়ামী লীগ দল ভাঙ্গার এবং ষড়যন্ত্রের রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না। বর্তমানে জাতীয় পার্টিতে যা ঘটছে তা তাদের নিজস্ব ব্যাপার। আওয়ামী লীগ বহুদলীয় গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে বিশ্বাস করে। আদালতের রায় লেখা নিয়ে সম্প্রতি প্রধান বিচারপতির মন্তব্য সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রধান বিচারপতি তার ব্যক্তিগত অভিমত প্রকাশ করেছেন। গণতান্ত্রিক দেশে সকলেই তার নিজস্ব অভিমত প্রকাশ করতে পারে। তিনি বলেন, সুপ্রীমকোর্টের পুরো বেঞ্চ রায় দিয়ে থাকে। কোন বিচারপতি একা কোন রায় দেন না। আর প্রধান বিচারপতি একা তার ব্যক্তিগত অভিমত প্রকাশ করেছেন। অন্যরা এ বিষয়ে কোন বিছু বলেন নি। বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে আশরাফ বলেন, রাজনীতির মাঠে পরাজিত হয়ে কে কি বলল, তা নিয়ে কোন রাজনৈতিক দলের লাফালাফি তাদের দেউলিয়াত্বই প্রকাশ করে। আওয়ামী লীগের ২০তম সম্মেলন সম্পর্কে আশরাফ বলেন, আওয়ামী লীগ যা করে তাই ইতিহাস হয়। আগামী সম্মেলনও তাই হবে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের ৭৭ ট জেলার মধ্যে ৫৯টি জেলার সম্মেলন সম্পন্ন হয়েছে। বাকী ১১ টি জেলার মধ্যে ৭ জেলার সম্মেলনের তারিখ আগেই নির্ধারণ করা হয়েছে এবং ৪ জেলার সম্মেলনের তারিখ আজ নির্ধারণ করা হয়েছে। আশরাফ বলেন, সকল জেলার সম্মেলন সম্পন্ন করে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এই প্রথম বারের মতো আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হচ্ছে। যা আওয়ামী লীগের জন্য একটি রেকর্ড হিসেবে উল্লেখ হয়ে থাকবে।