ব্রেকিং নিউজ

সন্ধ্যা ৬:৪৪ ঢাকা, বুধবার  ২৬শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

“মিয়ানমারকে সীমান্ত সিল করার অনুরোধ বিজিবির”

মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হামলার পর বান্দরবানের বড়মদক এলাকায় সেনাবাহিনী ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবি সমন্বিত সাঁড়াশি অভিযান শুরু করেছে।
বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।
একই সঙ্গে বিচ্ছিন্নতাবাদীরা যাতে ফিরে যেতে না পারে সেজন্য সীমান্ত সিল করে দিতে মিয়ানমারের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়েছে।
বিজিবি মহাপরিচালক বলেন, হামলাকারীদের ধরতে ওই এলাকায় অতিরিক্ত সেনা ও বিজিবি সদস্য পাঠানো হয়েছে। তারা সমন্বিতভাবে হেলিকপ্টারে সাহায্যে ওই এলাকায় সাঁড়াশি অভিযান চালাবেন।
অভিযানের সময় যাতে হামলাকারীরা মিয়ানমারের অভ্যন্তরে পালিয়ে যেতে না পারে, সেজন্য মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকেও তাদের সীমান্ত সিল করে দিতে বলা হয়েছে বলেও জানান তিনি।
এদিকে, স্থানীয় গণমাধ্যম প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন, বিকেল ৩টার পর বিজিবিকে নিয়ে সেনাবাহিনী ওই এলাকায় সাঁড়াশি অভিযান শুরু করেছে। তবে এখন পর্যন্ত বড় ধরনের সংঘর্ষের খবর পাওয়া যায়নি।
এর আগে বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মিয়ানমারের বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরাকান লিবারেশন আর্মির সদস্যরা বিজিবির একটি টহল দল ও বড়মদক বিজিবি ক্যাম্প লক্ষ্য করে গুলি ছোঁড়ে। এতে বিজিবির নায়েক জাকির হোসেন আহত হন। এ সময় বিজিবি পাল্টা গুলি ছুড়লে দুই পক্ষের মধ্যে গোলাগুলি শুরু হয়।
আহত বিজিবি সদস্য জাকিরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য হেলিকপ্টারে করে চট্টগ্রাম পাঠানো হয়েছে।
বিজিবি ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদী আরকান আর্মি সন্ত্রাসী কাজে ব্যবহারের জন্য বান্দরবান থেকে ১৪/১৫টি ঘোড়া বড়মদক নেয়ার সময় তিন্দু বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যরা আটক করে।
ঘোড়া আটকের ঘটনার জের ধরে আজ সকালে আরকান আর্মির সন্ত্রাসীরা সংঘবদ্ধ হয়ে বিজিবির একটি টহল দল ও বড়মদক বিজিবি ক্যাম্পে হামলা চালায়।