Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৬:২৭ ঢাকা, বুধবার  ১৪ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

‘মানুষ পোড়ানোর হুকুমদাতা-অর্থদাতাদেরও বিচার হবে’: প্রধানমন্ত্রী

pm12-12-4

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যারা পুড়িয়ে মানুষ মেরেছে, হুকুম দিয়েছে এবং এর পেছনে অর্থ দিয়েছে, তাদের সবার বিচারও বাংলার মাটিতে হবে।
মুন্সীগঞ্জ জেলার লৌহজং উপজেলার উত্তর মেদেনী মন্ডল খানবাড়ীতে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় তিনি এ কথা বলেন।
শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ যা বলে তা করে। আমরা বীরের জাতি, কথা দিয়েছিলাম নিজেদের অর্থায়নে পদ্মা সেতু করবো, কথা রেখেছি। নিজেদের টাকায় পদ্মা কাজ শুরু হয়েছে এবং ভালোভাবেই সুসম্পন্নও হবে।
তিনি বলেন, ‘আমরা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করবো বলে অঙ্গীকার করেছিলাম, তা করছি। বিচার হচ্ছে, রায় কার্যকরও হচ্ছে। যতো বাধাই আসুক এ বিচার কেউ বন্ধ করতে পারবে না।’

বিরোধী দলীয় আন্দোলনের সময় অগ্নিদগ্ধ হয় শিশুটি । বার্ন ইউনিটে দুই বছরের শিশু অগ্নিদগ্ধ জুই আক্তারের পাশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, যারা আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মানুষ মেরেছে, হুকুম দিয়েছে এবং এর পিছনে যারা অর্থ দিয়েছে, তাদের সবার বিচার বাংলার মাটিতে হবে।
নেতাকর্মীদের মামলা দেয়া হচ্ছে বলে বিএনপির অভিযোগের জবাবে তিনি বলেন, যারা মানুষ পুড়িয়ে মারার মতো জঘন্য ও নৃশংস কাজ করে, তাদের মামলা দেবে না তো ফুলের মালা দেবে।
বিএনপি-জামায়াত যে কোন মূল্যে দেশকে অকার্যকর করতে চায় অভিযোগ করে শেখ হাসিনা বলেন, এই দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান সংবিধান লংঘন করে এবং সব ধরনের সেনা আইন ভঙ্গ করে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করেছিলেন।
জিয়াউর রহমানের প্রতিষ্ঠিত দল বিএনপিও অবৈধ মন্তব্য করে তিনি বলেন, এই দল যখন নির্বাচন নিয়ে জ্ঞান দেয় সেটা প্রহসন ছাড়া আর কিছু নয়। কেননা ১৯৯৬ সালে ১৫ ফেব্রুয়ারি অবৈধভাবে নির্বাচন করে সরকার গঠন করেও জনগণের আন্দোলনের ফলে তারা ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হয়।
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের সভাপতিত্বে জনসভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, প্রেসিডিয়াম সদস্য নূহ-উল-আলম লেলিন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, খাদ্যমন্ত্রী অ্যডভোকেট কামরুল ইসলাম, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল প্রমুখ।
এরআগে শনিবার সকাল ১১টার দিকে নাওডোবায় পৌঁছেই পদ্মাসেতুর নদী শাসনের কাজ উদ্বোধন করেন শেখ হাসিনা। ওই পাড়ে আনুষ্ঠানিকতা শেষে দুপুর ১টায় মাওয়ায় সেতুর মূল কাজের উদ্বোধন করেন তিনি।