Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৯:১৬ ঢাকা, শুক্রবার  ১৬ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

ইকবাল মাহমুদ
দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ, ফাইল ফটো

মাদক বিক্রির সঙ্গে জড়িতদের এক মাসের আল্টিমেটাম দুদকের

রাজধানীতে আজ এক সেমিনারে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, যারা মাদক বিক্রি করে অবৈধভাবে অর্থসম্পদের মালিক হয়েছে ভালোর পথে আসার জন্য তাদের এক মাস সময় দেয়া হলো।

দুপুরে রাজধানীর ইস্কাটনস্থ বিয়াম ফাউন্ডেশন মিলনায়তনে ‘মাদকের ভয়াবহ আগ্রাসন : আমাদের করণীয়’ শীর্ষক সেমিনারে তিনি প্রধান অতিথির বক্তৃতা করছিলেন।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, সারাদেশে মাদক বিক্রির সঙ্গে জড়িত ৩৬৫ জনের একটি তালিকা আমরা হাতে পেয়েছি। যারা মাদক বিক্রি করে অবৈধভাবে অর্থসম্পদের মালিক হয়েছেন ভালোর পথে আসার জন্য তাদের এক মাস সময় দেয়া হলো। তিনি বলেন, তারা যদি এ সময়ের মধ্যে সঠিক পথে না আসে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ইকবাল মাহমুদ দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে সচেতনতা সৃষ্টির জন্য অভিভাবকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, “মাদকদ্রব্য আজ দেশের জেলা-উপজেলা পর্যায়ে পর্যন্ত পৌঁছে গেছে। এই মাদকের ভয়াল ছোবলের কারণে আগামী প্রজন্ম ধ্বংসের দিকে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে পরিবার থেকেই সচেতনতা তৈরি করতে হবে এবং মাদকের ক্ষতিকর দিকগুলো বাবা-মাকেই সন্তানদের জানাতে হবে।”
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব ফরিদ উদ্দিন আহম্মদ চৌধুরী।

সভাপতিত্ব করেন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের মহাপরিচালক সালাহউদ্দিন মাহমুদ। মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জাতীয় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের সদস্য অধ্যাপক ড. অরুপ রতন চৌধুরী।

অন্যান্যের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক রাশেদা রওনক, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক কাজী সাইফুদ্দিন আহমেদ, কর্নেল আনিসুর রহমান চৌধুরী ও মাওলানা হেলাল উদ্দিন বক্তৃতা করেন।

সেমিনারে ছাত্র, শিক্ষক, অভিভাবক ও জনপ্রতিনিধিরা প্রশ্নোত্তর পর্বে মাদক নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন মতামত তুলে ধরেন।

সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে মাদক ব্যবসা বন্ধ করতে বলা হয়েছে উল্লেখ করে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, বলেন, মাদক ব্যবসায়ী, সেবনকারী সবাইকে আইনের আওতায় আনতে হবে। এ ব্যাপারে কোন রকম ছাড় দেয়া উচিত নয়।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের মহাপরিচালক সালাহউদ্দিন মাহমুদ বলেন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণে আমরা স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি। একই সঙ্গে বিভাগ ও জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে বিভিন্ন জেলাতে মাদকের ক্ষতিকর দিকগুলো তুলে ধরে সভা, সেমিনার ও কর্মশালার আয়োজন করে জনগণকে সচেতন করা হচ্ছে।