Press "Enter" to skip to content

‘মমতা’ কিম জং উনের স্টাইলের : মন্ত্রী গিরিরাজ

এবার বিজয় মিছিল না করতে দেয়া নিয়ে মমতা ব্যানার্জিকে তীব্র আক্রমণ করলেন মোদি মন্ত্রিসভার সদস্য।

শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে উত্তর কোরিয়ার স্বৈরাচারী শাসক কিম জং উনের সঙ্গে তুলনা করেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গিরিরাজ সিং।

পশ্চিমবঙ্গে সাম্প্রতিককালে বেশ কয়েকজন বিজেপি কর্মীকে খুন করা হয়েছে এ অভিযোগ প্রসঙ্গে বক্তব্য রাখতে গিয়ে একথা বলেন মোদি মন্ত্রিসভার এই সদস্য। -ইকোনমিক টাইমস।

তার কথায়, ‘উত্তর কোরিয়া স্টাইলে রাজ্য চালাচ্ছেন মমতা। কিম জং উনের ভূমিকা পালন করছেন। যারাই কিমের বিরোধিতা করেন, তিনি তাদের নিজের রাস্তা থেকে সরিয়ে দেন। মমতাও সেই কাজই করছেন।

তিনি পশ্চিমবঙ্গে বিজেপিকে বিজয় মিছিল করতে দিচ্ছেন না। যেভাবে মমতা সরকার চালাচ্ছেন তাতে মনে হয় তিনি সংবিধানের প্রতি আস্থাশীল নন। দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে তিনি প্রধানমন্ত্রী বলে মনেই করেন না।

তিনি কোনো ব্যবস্থাপনা দ্বারাই পরিচালিত হতে রাজি নন। তবে বাংলার মানুষ সিদ্ধান্ত নিয়েছে তার দিন ফুরিয়ে এসেছে। মানুষ উন্নয়ন চায়।’ সাম্প্রতিককালে রাজ্যে বিজেপির প্রায় ৫৪ জন কর্মীকে খুনের অভিযোগ উঠেছে, প্রতিটি ক্ষেত্রেই পদ্ম শিবিরের দাবি- খুনের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে তৃণমূল কর্মীরা। মমতা অবশ্য প্রথম থেকে এ অভিযোগ অস্বীকার করেন। কয়েকদিন আগে যখন দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নরেন্দ্র মোদি শপথ নেন সেই অনুষ্ঠানে এ অভিযোগের কারণেই গড়হাজির ছিলেন মমতা। প্রথমে তিনি জানান, এ ধরনের অনুষ্ঠান সাংবিধানিক বিষয়। সেখানে রাজনৈতিক সমীকরণ কাজ করে না। আর তাই প্রধানমন্ত্রীর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে তিনি উপস্থিত থাকবেন। কিন্তু মমতার বক্তব্য জানার কিছুক্ষণের মধ্যেই বিজেপির তরফ পশ্চিমবঙ্গে রাজনৈতিক সংঘর্ষে নিহত দলীয় কর্মীদের পরিবারকে শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়।

এ কথা জানতে পেরে নিজের মত বদল করেন মমতা। টুইট করে তিনি জানান অকারণে তার দল তৃণমূল কংগ্রেসকে রাজনৈতিক খুনে অভিযুক্ত করা হচ্ছে তাই তার পক্ষে প্রধানমন্ত্রীর শপথের অংশ নেয়া সম্ভব নয়।

বিজেপির তরফে একাধিকবার মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমণ করা হয়েছে। বিজেপি সংসদ সদস্য সাক্ষী মহারাজ বলেন, ‘মমতার আচরণ হিরণ্যকশপের মতো। তাই তার সামনে কেউ রামের নাম করলে তিনি রেগে যাচ্ছেন।’

এরপর বারানসির পাতালপুরী মন্দিরের প্রধান পুরোহিত মমতা ব্যানার্জিকে রামচরিত মানস পাঠান। তার দাবি, ‘মমতার মন শুদ্ধ করতে এই বইটি পড়া খুব জরুরি।’ এসবের মাঝেই দুদিন আগে রাজ্য প্রশাসন সিদ্ধান্ত নিয়েছে, বিজেপি আর কোনো বিজয় মিছিল করতে পারবে না।

মমতা নিজেই অভিযোগ করেছেন, ‘বিজয় মিছিলের নামে তাণ্ডব করছে বিজেপি। রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় অশান্তি ছড়াচ্ছে তারা। আর তাই বিজয় মিছিল করতে দেয়া হবে না।’

কড়া প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেছেন, ‘আমরা আগে থেকে অনুমতি নিয়েছি তাই যেভাবে ঠিক ছিল সেভাবেই বিজয় মিছিল হবে।’

শেয়ার অপশন:
Don`t copy text!