Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১০:৩৯ ঢাকা, মঙ্গলবার  ২০শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ভেড়ামারায় পাওয়ার প্ল্যান্টের উদ্বোধন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ ভেড়ামারায় ৪১০ মেগাওয়াট কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ারপ্ল্যান্টের উদ্বোধন ও ১৫ টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়নের ঘোষণা দেন। এ সময় তিনি ব্যবহারের ক্ষেত্রে মিতব্যয়ী হওয়ার জন্যে পুনরায় জনগণের ওপর আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে আজ সকালে এক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পাওয়ার প্ল্যান্ট উদ্বোধণ ও ১৫ টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়নের এ ঘোষণা দেন। এ সময় তিনি একই আনুষ্ঠানিকতায় অনলাইন উদ্ভাবক প্রশিক্ষণ মঞ্চ ‘কুশলী’-এরও উদ্বোধন করেন।

ভেড়ামারা কম্বাইন্ড সাইকেল ডুয়েল ফুয়েল পাওয়ার প্ল্যান্ট পরিকল্পনাটি ৩ হাজার ৭৮৪ দশমিক ৯৮ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত। এতে ৬৩৪ দশমিক ৭২ কোটি টাকা সরকারি বরাদ্দ ও বাকী অর্থ সহযোগীদের কাছ থেকে আসে। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের প্রতিষ্ঠান দি নর্থ-ওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানী লিমিটেড কুষ্টিয়ার ভেরামারা উপজেলার বহির্চর অঞ্চলে এ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে। ১৫টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়নের আওতায় আনা হয়েছে। সেগুলো হচ্ছে ঢাকার ধামরাই, কিশোরগঞ্জের নিকোলী, চট্টগ্রামের রাউজান, রংপুরের পীরগঞ্জ, কুষ্টিয়ার খোকশা, সতক্ষীরার দেবহাটা, খুলনার রূপসা, ফুলতলা ও দীঘলীয়া, নাটোরের বাগাতিপাড়া, পাবনার বেড়া, সিলেটের বিয়ানিবাজার, দিনাজপুর সদর ও নিাজপুরের বিরামপুর। এসব উপজেলার সঙ্গে আরো ৫১ টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়ন সুবিধার ঘোষণা দেয়া হয়। ‘কুশলী’ একটি ওয়েব- ভিত্তিক শিক্ষা ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি বা সফটওয়্যার ব্যবহারকারি পরিকল্পনা যা সুনির্দিষ্ট শিক্ষা প্রক্রিয়াকে নির্ণয় ও বাস্তবায়ন করে। এ প্রক্রিয়া আগামী তিন দশকব্যাপী বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান বিদ্যুতের প্রযোজনীয়তা পুরনে সহযোগিতা করবে। বাংলদেশের যে কোনো জায়গা থেকে যে কেউ এ প্রশিক্ষণে অংশ নিতে পারবে। জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী এ সময় উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন।

জ্বালনি বিভাগের সচিব ড. কাইকাস মূল প্রবন্ধে বাংলাদেশের বিদ্যুতায়নের অতিত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো.নজীবুর রহমান অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন।

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ, বিদ্যুৎ,জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী নাসরুল হামিদ বিপু এসময় উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া বিদ্যুৎ , জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম, জাতীয় সংসদের হুইপ আতিউর রহমান আতিক, ঢাকায় জাপানের রাষ্ট্রদূত, সংসদ সদস্যবৃন্দ ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তরা অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।

পরে প্রধানমন্ত্রী সরকারি কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন বিভাগের মন্ত্রী, গণপ্রতিনিধি, শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষার্থী, মুক্তিযোদ্ধা ও ভিডিও কনফারেন্সে অংগ্রহণ করে সুবিধাপ্রাপ্তদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।