ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ১:০৭ ঢাকা, সোমবার  ২৪শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

নৌকাটিতে বেশির ভাগ যাত্রীই ছিলেন পূর্ব আফ্রিকার বিভিন্ন দেশের

ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে পাঁচ শতাধিক প্রাণহানির আশংকা

ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবির ঘটনায় পাঁচ শতাধিক শরণার্থীর মৃত্যুর আশংকা করা হচ্ছে।

মিসর থেকে ইতালি যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। খবর বিবিসির।
 
এ ঘটনায় ১৬৯টি মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া ৪১ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধার করা শরণার্থীরা জানান, সাগরে ডুবে নারী ও শিশুসহ পাঁচ শতাধিক শরণার্থী মারা গেছে। অনেকে এখনও নিখোঁজ।

সোমালিয়া, ইথিওপিয়া ও ইরিত্রিয়ার এসব শরণার্থী চারটি নৌকায় ঠাসাঠাসি করে যাত্রা শুরু করেন।

ইতালির প্রেসিডেন্ট সার্গিও মেটারেল্লা জানিয়েছেন, নৌকাডুবিতে কয়েকশ’ মানুষ মারা গেছেন বলে তারা ধারণা করছেন। তিনি আরও জানান, ভূমধ্যসাগরে আবারও দুর্ঘটনা ঘটল। এ থেকে ইউরোপকে বিষয়টি নিয়ে ভাবা উচিত।

আন্তর্জাতিক অভিবাসীবিষয়ক সংস্থার তথ্যানুযায়ী, গত সপ্তাহে অন্তত ৬ হাজার শরণার্থী লিবিয়া থেকে ইতালির উদ্দেশে যাত্রা করেন। আশ্রয়প্রার্থী ১ লাখ মানুষের স্রোতের মধ্যে তারা ছিলেন।

সোমালিয়ার স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের বরাত দিয়ে মেইল অনলাইন জানিয়েছে, উদ্ধারকর্মীরা ২৯ জনকে জীবিত উদ্ধার করতে পেরেছেন। মারা যাওয়ার শংকায় রয়েছেন অন্তত ৪০০ জন। সোমালিয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সোমালি ভাষায় হাতে লেখা নিহতদের তালিকা অনেকেই প্রকাশ করেছেন।

বিবিসির ইংরেজি সংস্করণে বলা হয়েছে, নৌকাডুবিতে জীবিত উদ্ধার হওয়াদের গ্রিসের একটি দ্বীপে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এদিকে ভূমধ্যসাগরে উদ্ধার অভিযান বন্ধ করা এবং অবহেলায় মৃত্যুর অভিযোগে ইউরোপীয় ইউনিয়নের নীতিনির্ধারকদের সমালোচনা করা হচ্ছে।

সর্বশেষ প্রায় এক বছর আগে মাছ ধরার নৌকায় সাগর পাড়ি দিতে গিয়ে ৮০০ মানুষের প্রাণহানি ঘটে।