Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ৮:১২ ঢাকা, বুধবার  ২১শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

দুদক

ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদে চাকরি-অর্থ আত্মসাৎ, ১৯ পুলিশসহ গ্রেপ্তার ২৫

ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদে চাকরি ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে ১৯ পুলিশ সদস্যসহ ২৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। সোমবার কুমিল্লা, টাঙ্গাইল, পাবনা ও ময়মনসিংহ থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

দুদক সূত্র জানায়, প্রতারণা ও জালিয়াতির মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধার ভুয়া সনদ দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টবল পদে ভর্তি  ও চাকুরী করার অপরাধে ২০ জনেক গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগে ২০১৪ সালের ৬ নভেম্বর একটি মামলা দায়ের করা হয়েছিল। ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুর্নীতি দমন কমিশনের পাবনা সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-সহকারী পরিচালক মো. আবুল কালাম আজাদ পাবনার চাঁদাখাঁর বাঁশতলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করেন।

এই ২০ জনের নাম মো. আইয়ুব আলী (কং/২৯৮৫৫, টিআরসি-৪৫৫), মো. কামরুল ইসলাম (কং/২৬৬৬, টিআরসি-২৭১), আব্দুল কুদ্দুছ শেখ (কং/২৯৫৪০, টিআরসি-৫০০), মো. আলী আব্বাছ (কং/২৯০৮৩, টিআরসি-৫০১), মোহাম্মদ আলী (কং/২৯৯১৯, টিআরসি-১০৫), মো. সবুজ মিয়া (কং/২৬৩১, টিআরসি-১৭১), মো. আবু হানিফ (কং/২৬৩০ টিআরসি-১৭০), মো. সাইফুল ইসলাম (কং/২০৫৯২, টিআরসি-২১৪), মো. ফেরদৌস (কং/১৫০৯১, টিআরসি-৯২), মো. সাইফুল ইসলাম (কং/১৪২৮০, টিআরসি-৫০৭), মো. হায়দার আলী (কং/২৯৪৬০, টিআরসি-২৩০), মো. বুদ্ধি মিয়া (কং/২৭৫৯, টিআরসি-৩৭২), সুমন কুমার সরকার (কং/২৭৪৬, টিআরসি-২১৬), মো. শহিদুল ইসলাম (কং/২৯৯৬৩, টিআরসি-২৬৭), মো. আব্দুল আউয়াল ( কং/২৪৬০৯, টিআরসি-৫৮২), মো. আমিরুল ইসলাম (কং/২৩০৬২, টিআরসি-৪১), মো. আল আমিন (কং/১৯২৭৪, টিআরসি-৪৮৩), মো. সোহেল রানা (কং/২০৭০২, টিআরসি-৩২), মো. সুমন আহম্মেদ (কং/২০৮৮১, টিআরসি-৫৮)। এই মামলায় মোছা. তাজুন্নাহার নামে আরেক নারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে । তিনি স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এর পাবনার নির্বাহী প্রকৌশলীর কার্যালয়ের সাবেক সোশিওলজিস্ট।

এদিকে পেনশনারদের নামে জমাকৃত ১৬ কোটি ছয় লাখ দুই হাজার ৯৬২ টাকা আত্মসাতের মামলায় কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলা হিসাবরক্ষক মোখলেসুর রহমান ও কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলা হিসাবরক্ষক কর্মকর্তা বিল্লাল হোসেন পাটোয়ারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সেই সঙ্গে  সাত লাখ ২৯ হাজার টাকা আত্নসাতের অভিযোগে ময়মনসিংহ থেকে আনসার উদ্দিনকে এবং ৪৫০ শতাংশ ভুমি আত্মসাতের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় টাঙ্গাইলের বাসিন্দা আব্দুল কাদের মিয়া ও শুকুর মামুদ কে গ্রেফতার করা হয়।