শীর্ষ মিডিয়া

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১১:৫৪ ঢাকা, শুক্রবার  ১৪ই ডিসেম্বর ২০১৮ ইং

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, ফাইল ফটো

‘ভন্ডদের বিরুদ্ধে জনগণ গণরায় দেবে’

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য, কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত এবং নীতি ও আদর্শহীন ভন্ডদের বিরুদ্ধে দেশের জনগণ গণরায় দেবে।

আজ শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কন্দ্রীয় কার্যালয়ে ১৪ দলের সঙ্গে পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদের এক মতিবিনিময় সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এই আশা প্রকাশ করেন।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমালোচনা করে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘ডিসেম্বর মাসে বাঙালী বিজয় ছাড়া অন্য কোন বিকল্প চিন্তা করতে পারে না। বাঙালি সবসময় ডিসেম্বর মাসে বিজয় অর্জন করেছে। এবারও নির্বাচন ডিসেম্বরে। এই কারণে বিশ্বাস করি, বাঙালি জাতি অপশক্তি, নীতিহীন, আদর্শহীন দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে আবারও বিজয় অর্জন করবে।’

তিনি বলেন, দেশের জনগণ নবান্ন উৎসবের মতো ভোট উৎসবের প্রস্তুতি নিয়ে আছে। তারা ভোট দিতে চায়, নৌকার বিজয় অর্জন করতে চায়।

১৪ দল ঐক্যবদ্ধ আছে দাবি করে নাসিম বলেন, এ লড়াই হচ্ছে সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে, এ লড়াই হচ্ছে কিছু নীতি ও আদর্শহীন নেতৃত্বের বিরুদ্ধে। এ লড়াই হচ্ছে বিএনপি-জামায়াত জোটের সেই দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসবাদ এবং জঙ্গি যারা লালন করেছে; তাদেরকে চিরদিনের জন্য পরাজিত করার নির্বাচন। নির্বাচনের পরে বাংলাদেশে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি ছাড়া কোন রাজনৈতিক অপশক্তি আর দেশে থাকবে না, এটা দেখতে চাই।

সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, সারাদেশের মানুষ আজকে শেখ হাসিনাকে বিজয়ী করার জন্য উন্মুখ হয়ে আছে। মানুষ উৎসবমুখর হয়ে আছে। তারা ভোট দিতে চায়, নৌকার বিজয় অর্জন করতে চায়। সমস্ত গণতান্ত্রিক শক্তি ঐক্যবদ্ধ হয়ে গেছে।
মোহাম্মদ নাসিম বলেন, আমাদের যে কোন বিচ্যুতি পরাজয়ের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে। আমরা কি পেলাম কি পেলাম না, বড় কথা না। একারণে আগামী ১৬ ডিসেম্বর থেকে দেশের প্রতিটি উপজেলায় বিজয় মঞ্চ করা হবে। এখান থেকে সবাই মিলে ঐক্যবদ্ধ কাজ করে বিজয় নিশ্চিত করবো।

অনুষ্ঠানে জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়–য়া, আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রিড়া বিষয়ক সম্পাদক হারুন অর রশিদ, বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের (এফবুটা) সভাপতি অধ্যাপক ড. এএসএম মাকসুদ কামাল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সাবেক উপচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি নূর মোহাম্মদ তালুকদার, কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশনের সভাপতি এম এম সালেহ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

এছাড়াও বৈঠকে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সবুর, উপ-দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়–য়া, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, কমিউনিস্ট কেন্দ্রের আহ্বায়ক ডা. ওয়াজেদুল ইসলাম, ওয়ার্কার্স পার্টির পলিট ব্যুরো সদস্য আনিসুর রহমান মল্লিক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।