ব্রেকিং নিউজ

রাত ১২:১৯ ঢাকা, বুধবার  ১২ই ডিসেম্বর ২০১৮ ইং

আবুল মাল আবদুল মুহিত
আবুল মাল আবদুল মুহিত, ফাইল ফটো

ব্যাংকের সিআরআর ১শতাংশ কমবে : অর্থমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, ব্যাংকিং সেক্টরে সাম্প্রতিক তারল্য সংকট মোকাবেলায় দৈনন্দিন লেনদেনের ক্ষেত্রে আমানতের বিপরীতে জমা রাখা অর্থের (সিআরআর) পরিমাণ ১ শতাংশ কমিয়ে সাড়ে ৫ শতাংশ করা হবে। বর্তমানে এই হার হচ্ছে ৬ দশমিক ৫ শতাংশ।

আজ রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ ব্যাংক এসোসিয়েশনের (বিএবি) সঙ্গে এক বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, আমরা বৈঠকে সিআরআর ১ শতাংশ কমিয়ে ৫ দশমিক ৫ শতাংশ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

বৈঠকে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, বিএবি’র চেয়ারম্যান এম নজরুল ইসলাম মজুমদার এবং বিভিন্ন ব্যাংকের পরিচালকগণ উপস্থিত ছিলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, এই পদক্ষেপ ব্যাংক সেক্টরে সৃষ্ট সাম্প্রতিক তারল্য সংকট মোকাবেলায় সহায়ক হবে। তবে এতে কোন মূদ্রাস্ফীতির চাপ সৃষ্টি করবে না। তিনি বলেন, ব্যাংক মালিকরা সিআরআর ৩ শতাংশ কমানোর দাবি জানিয়েছিলেন।

বিএবি’র চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মজুমদার বলেন, আমরা বর্তমান সংকট মোকাবেলায় সিআরআর ৩ শতাংশ কমানোর প্রস্তাব দিয়েছিলাম। এতে ব্যাংকগুলো তাদের নিজ নিজ তারল্য সংকট মোকাবেলা করতে পারতো।

তিনি বলেন, সরকার সিআরআর এর হার কমালে ব্যাংকগুলো বর্তমান সংকট মোকাবেলা করে দৈনন্দিন স্বাভাবিক লেনদেন মেটাতে কিছু টাকা পাবে। তিনি আরো বলেন, ১ শতাংশ সিআরআর কমানোর সিদ্ধান্তে তারল্য সংকট নিরসনে এবং ব্যাংকিং সেক্টরের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

তিনি বলেন, বিপুল পরিমাণ অলস অর্থ জমে আছে, এর বেশির ভাগ অর্থই হচ্ছে সরকারি অর্থ। সরকার বেসরকারি ব্যাংকগুলোকে এর কিছু টাকা দিলে ব্যাংকগুলোর তারল্য সংকট নিরসন হতে পারে এবং এর ফলে দেশের অর্থনীতিও গতিশীল হবে।

নজরুল ইসলাম মজুমদার বলেন, দেশে বিনিয়েগে বেসরকারি ব্যাংক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। মোট বিনিয়োগের ৭০ শতাংশই বেসরকারি ব্যাংকের। সিআরআর হচ্ছে রিজার্ভ অর্থ। ব্যাংকগুলোকে আমানতের বিপরীতে বাংলাদেশ ব্যাংকে একটি নিদিষ্ট পরিমাণ অর্থ রিজার্ভ রাখতে হয় গ্রাহকদের ক্যাশ সিকিউরিটির জন্য।

শীর্ষ মিডিয়া