Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৭:২৭ ঢাকা, রবিবার  ১৮ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

বেতার একটি অত্যন্ত শক্তিশালী সম্প্রচার মাধ্যম

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন।

 

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের মাঠ পর্যায় পর্যন্ত বেতারের শ্রোতা থাকায় প্রযুক্তির উৎকর্ষের এই যুগেও এটি একটি কার্যকরী এবং অত্যন্ত শক্তিশালী সম্প্রচার মাধ্যম।
মন্ত্রী আজ দুপুরে রাজধানীর আগারগাঁও জাতীয় বেতার ভবনে বিশ্ব বেতার দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ বেতার আয়োজিত দু’দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালা উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।
অর্থমন্ত্রী বলেন, উন্নয়নশীল দেশের প্রেক্ষাপটে আমাদের দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল ও তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত বেতারের শ্রোতা থাকায় এটি সমাজ বিনির্মাণের একটি শক্তিশালী মাধ্যম হিসেবে বিবেচিত হয়। প্রত্যন্ত অঞ্চলের জনগণের সঙ্গে সরকার ও রাষ্ট্রের যোগাযোগের ক্ষেত্রে এটি অনেক সময়ই সেতুবন্ধ হিসেবে কাজ করে। তাই মোবাইল ও টেলিভিশন সম্প্রচারের ক্ষেত্রে বর্তমানকালে বিপ্লব ঘটালেও বেতার, তার অবস্থানকে অটুট রাখতে পেরেছে।
বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক কাজী আকতারুদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন তথ্য মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ এমপি, অ্যাডভোকেট তারানা হালিম এমপি ও তথ্যসচিব মরতুজা আহমদ।
আবুল মাল আবদুল মুহিত তাঁর বক্তৃতায় মহান মুক্তিযুদ্ধে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের ভূমিকাকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে বাংলাদেশ বেতারের গৌরবজ্জ্বল অতীতের বিভিন্ন স্মৃতি রোমন্থন করেন।
তিনি বলেন, বেতারে সম্প্রচারিত দেশিয় ইতিহাস-ঐতিহ্য, সংস্কৃতি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, আবহাওয়া বিষয়ক সংবাদ ও অনুষ্ঠান যেমন আমাদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করে তেমনি এর সঙ্গীত, নাটকসহ বিভিন্ন বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান সম্প্রচারও আমাদের অপরিসীম আনন্দ দেয়।
অ্যাডভোকেট তারানা হালিম বলেন, বেতারের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বপূর্ণ গৌরবগাঁথা তুলে ধরতে হবে। তাহলেই দেশের নতুন প্রজন্ম দেশের সঠিক ইতিহাস জানার মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হবে।
তিনি সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে দেশের শিল্পী সমাজকে দেশে চলমান সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে নামার জন্যও আহবান জানান।
তথ্যসচিব মরতুজা আহমদ বলেন, একটি সুপ্রাচীন ও অত্যন্ত শক্তিশালী গণমাধ্যম হিসেবে বাংলাদেশ বেতার প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যপ্রাপ্তি ও বিনোদনের মাধ্যম।
তিনি বিশ্ব বেতার দিবস উদযাপনের সফলতা ও বাংলাদেশ বেতার ভবনের সার্বিক সাফল্য কামনা করে বলেন, বেতার সবসময়ই এদেশের গণমানুষের পাশে রয়েছে। আগামী দিনেও বেতার বাংলাদেশের জনগণের সাথে থাকবে।
‘যুব ও বেতার’ শীর্ষক প্রতিপাদ্য নিয়ে এবারের বিশ্ব বেতার দিবস উপলক্ষ্যে আগারগাঁওস্থ বেতার ভবনে আয়োজিত দু’দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার মধ্যে রয়েছে- সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান,বিশেষ অনুষ্ঠান সম্প্রচার, পুরনো রেডিও সেটের প্রদর্শনী প্রভৃতি।