Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৭:১৭ ঢাকা, শুক্রবার  ১৬ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

‘বিসিকে খালি পড়ে থাকা প্লটগুলোর বরাদ্দ বাতিল করুন’- শিল্পমন্ত্রী

শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু দেশের বিভিন্ন জেলাস্থ ‘বিসিক শিল্প নগরী’তে দীর্ঘদিন খালি পড়ে থাকা প্লটগুলোর বরাদ্দ বাতিলের জন্য জেলা প্রশাসকদের নির্দেশনা দিয়েছেন।

তিনি বলেন,‘বিসিক শিল্পনগরিগুলোতে কোনো কোনো উদ্যোক্তা প্লট বরাদ্দ নেয়ার পরও শিল্প স্থাপন না করায় প্রকৃত উদ্যোক্তারা প্লটের অভাবে শিল্প-কারখানা স্থাপন করতে পারছেন না। এতে করে শিল্পায়নের অভীষ্ট লক্ষ্য অর্জন ব্যর্থ হচ্ছে। তাই এ বিষয়ে জেলা প্রশাসকদের দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে।’

আমির হোসেন আমু, শিল্প স্থাপনে ব্যর্থ উদ্যোক্তাদের প্লট বাতিল করে ওইসব প্লট নতুন শিল্পদ্যোক্তাদের মাঝে বরাদ্দ দেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট জেলার ডিসিদের প্রতি নির্দেশনা প্রদান করেন।

তিনি আজ বুধবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত জেলা প্রশাসক সম্মেলনের পঞ্চম অধিবেশনে বক্তব্য প্রদান শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে এ কথা জানান।

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন, শিল্প মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়াসহ শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বিভিন্ন সংস্থা-কর্পোরেশনের প্রধানরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার গৃহীত পদক্ষেপের ফলে গত সাত বছরে দেশের কোথাও সারের কোনো ধরনের সংকট হয়নি। এর সিংহভাগ কৃতিত্ব জেলা প্রশাসকদের।

ভবিষ্যতে দেশব্যাপী সুষ্ঠু সার ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করার পাশাপাশি বিভিন্ন জেলায় ১৩টি বাফার গুদাম নির্মাণের জন্য জমি অধিগ্রহণসহ অন্যান্য কাজে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ভূমিকা রাখতে জেলা প্রশাসকদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলেও আমির হোসেন আমু উল্লেখ করেন।

এ ছাড়া ধর্মের নামে জঙ্গিবাদী কর্মকান্ডের মাধ্যমে জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে বাংলাদেশকে হেয় করার যে চক্রান্ত চলছে, সে বিষয়ে সতর্ক থেকে চলমান উন্নয়ন কর্মকান্ডকে এগিয়ে নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে বলেও তিনি জানান ।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে শিল্পমন্ত্রী বলেন, রাষ্ট্রায়ত্ত চিনিকলে উৎপাদন বাড়াতে মাড়াই মৌসুমে চাষিরা যাতে চিনিকলে পর্যাপ্ত পরিমাণে আখ সরবরাহ করে সেজন্য তাদের উদ্বুদ্ধ করতে জেলা প্রশাসকদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

একই সাথে চিনিকল জোনে পাওয়ার ক্রাসারের মাধ্যমে অবৈধভাবে গুঁড় তৈরি বন্ধ করতে বিদ্যমান আইনের কঠোর প্রয়োগের জন্য জেলা প্রশাসকদের দৃষ্টি আকর্ষণ এবং চিনিকলের বেদখলকৃত জমি উদ্ধারে কার্যকর উদ্যোগ নিতে জেলা প্রশাসকদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

আমির হোসেন আমু বলেন, জনগণের জন্য নিরাপদ খাদ্য ও পণ্য নিশ্চিত করতে জেলা পর্যায়ে বিএসটিআই’র অভিযান জোরদার করা হবে।

তিনি বলেন, আয়োডিনবিহীন ভোজ্য লবণ এবং ভিটামিন-‘এ’ ছাড়া ভোজ্য তেল উৎপাদন, বাজারজাতকরণ, বিক্রয় প্রতিরোধ করতে ভোজ্যতেল শোধনাগার ও লবণ মিলগুলোর পাশাপাশি জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের বাজারে ঘন ঘন ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করতে জেলা প্রশাসকদের প্রতি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

শিল্পমন্ত্রী সাংবাদিকদের জানান, জেলা প্রশাসকদের পক্ষ থেকে প্রতি জেলায় ল্যাবসহ বিএসটিআই অফিস স্থাপন, ফরমালিন পরীক্ষার কীট সরবরাহ, পুরনো বিসিক শিল্পনগরিগুলোর সম্প্রসারণ, শিল্পনগরির রাস্তাঘাট মেরামত, চিনিকলগুলোতে ইটিপি স্থাপন, মৌসুমী ফলের প্রাচুর্যতা বিবেচনা করে ফ্রুট প্রসেসিং শিল্পনগরি স্থাপন, বরিশাল অঞ্চলে ফ্রোজেন ফিস ইন্ডাস্ট্রি এবং কক্সবাজারে লবণ গবেষণাগার ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপনের প্রস্তাব এসেছে।

এ বিষয়ে শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে দ্রুত কার্যকর উদ্যোগ নেয়া হবে বলে তিনি জানান।