ব্রেকিং নিউজ

রাত ৮:৩২ ঢাকা, মঙ্গলবার  ২১শে আগস্ট ২০১৮ ইং

শেখ হাসিনা
প্রধানমন্ত্রী এবং সংসদ নেতা শেখ হাসিনা

বিরোধী দল বিএনপির সময় সংসদে খিস্তী-খেইর হত : প্রধানমন্ত্রী

বিএনপি-জামায়াত সংসদে বিরোধী দলে থাকার সময় সংসদে খিস্তী-খেইর হত। কিন্তু, আমরা এখন এ ধরনের কিছু শুনতে পাই না’, বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী এবং সংসদ নেতা শেখ হাসিনা।

সংসদ নেতা শেখ হাসিনা আজ দেশ পরিচালনায় সর্বাত্মক সহযোগিতার জন্য দেশবাসীকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, তিনি সব সময় সবাইকে সঙ্গে নিয়েই চলতে চান।

তিনি বলেন, ‘আমি একা চলতে চাই না। সব সময় সবাইকে সঙ্গে নিয়েই চলতে চাই এবং আমি তা করেও থাকি।’

প্রধানমন্ত্রী আজ সংসদে তাঁর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে জাতীয় পার্টির সদস্য ফখরুল ইমামের এক সম্পূরক প্রশ্নের উত্তরে একথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি দেশবাসীকে ধন্যবাদ জানাই কারণ তাদের কাছ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা পাচ্ছি। সকলের সহযোগিতা পাচ্ছি বলেই আমরা দেশকে উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত করতে পারছি।’

তিনি এ সময় দেশের সকলের সমন্বিত প্রয়াসেই আজকের এই উন্নয়ন বলেও উল্লেখ করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি- কোন অর্জনের পেছনেই সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টা থাকে। তবে, হ্যাঁ হাল একজনকেই ধরতে হয়। যেমন- গাড়ি চালানোর সময় ড্রাইভিং সিটে একজনই থাকে। সে সঠিকভাবে চালালেই গাড়ি নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছতে পারে।’

শেখ হাসিনা এ সময় বিখ্যাত রবীন্দ্র সঙ্গীত ‘যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে তবে, একলা চলরে’ উদ্ধৃত করে বলেন, যদিও তিনি একলা চলতে চান না। সকলকে নিয়েই এগিয়ে যেতে চান।

তিনি এ সময় সংসদে গঠনমূলক ব্যবহার এবং বক্তব্য উপস্থাপন করায় বিরোধীদলকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, তারা গণতান্ত্রিক মানসে সংসদে গঠনমূলক আলোচনা করছেন এবং সকলক্ষেত্রেই সহযোগিতার হাতকে প্রসারিত করেছেন।

‘বিএনপি-জামায়াত সংসদে বিরোধী দলে থাকার সময় সংসদে খিস্তী-খেইর হত। কিন্তু, আমরা এখন এ ধরনের কিছু শুনতে পাই না’, বলেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা এ সময় দেশের তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত দেশের জনগণ তাঁর সরকারের উন্নয়নের সুফল পাচ্ছে উল্লেখ করে বলেন, এটাই তাঁর সরকারের উন্নয়নের মূল লক্ষ্য ।

ক্ষুধা ও দারিদ্র্য মুক্ত উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তোলায় তাঁর সরকারের অঙ্গীকারের কথা পুনর্ব্যক্ত করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘মানুষের মৌলিক চাহিদাগুলো পূরণ করে সুখী – সমৃদ্ধ বাংলাদেশ এবং সমাজ গড়ে তুলতে চাই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা তৃণমূল পর্যন্ত সামষ্টিক অর্থনীতির সুফল পৌঁছে দিতে চাই এবং সেই লক্ষ্য বাস্তবায়নেই কাজ করে যাচ্ছি।

শেখ হাসিনা তাঁর সরকারের সময়ে দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি, মাথা পিছু আয় বৃদ্ধি, দেশের রিজার্ভ ও বিদেশি বিনিয়োগ বৃদ্ধি, ব্যবসা-বাণিজ্য, রাজস্ব আয়, বাজেট, বিদ্যুতের সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং দারিদ্র্য বিমোচনে তাঁর সরকারের সাফল্য তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রী এ সময় বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির পেছনে আন্তর্জাতিক বিশ্লেষকদের মূল্যায়নও সংসদে উপস্থাপন করেন।