ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ১:২১ ঢাকা, সোমবার  ২১শে মে ২০১৮ ইং

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক
জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক

বিক্ষোভকে ঘিরে ইরান বিরোধী বৈঠক ব্যর্থ

সাম্প্রতিক বিক্ষোভকে ঘিরে ইরানের বিরুদ্ধে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে গেলেও পাত্তা পায়নি যুক্তরাষ্ট্র। স্থায়ী সদস্য চীন, রাশিয়া ও ফ্রান্সসহ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য দেশগুলোর বিরোধিতার মুখে শুক্রবার রাতের ইরান বিরোধী বৈঠকটি ব্যর্থ হয়েছে।

বৈঠকের শুরুতে জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি বলেন, ইরানে নৈরাজ্য সৃষ্টিকারীদের প্রতি ওয়াশিংটনের পূর্ণ সমর্থন রয়েছে। কিন্তু ফরাসি রাষ্ট্রদূত ফ্রাঁসোয়া দেলাত্রে ইরানের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের বিরোধিতা করে বলেন, ইরানের সাম্প্রতিক ঘটনাবলী আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তাকে হুমকির মুখে ঠেলে দেয়নি।

বৈঠকে চীনের রাষ্ট্রদূত ইরানের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের আহ্বান জানিয়ে বলেন, একটি দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করা নিরাপত্তা পরিষদের উচিত হবে না।

রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া বলেন, আজকের বৈঠকে যে বিষয়টি উত্থাপন করা হয়েছে তার সঙ্গে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের কোনো সম্পর্ক নেই। নিরাপত্তা পরিষদের ভূমিকা দুর্বল হয়ে যায় এমন কোনো কাজ করা যুক্তরাষ্ট্রের উচিত নয়।

এছাড়া বলিভিয়া, হল্যান্ড, কুয়েত ও কাজাখস্তানসহ আরও কয়েকটি দেশ ইরানের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের বিরোধিতা করে। শেষ পর্যন্ত নিরাপত্তা পরিষদের এ বৈঠকে ইরানের ব্যাপারে কোনো প্রস্তাব পাস করা সম্ভব হয়নি।

ইরানে গত মাসের শেষ সপ্তাহে ডিমের দাম বৃদ্ধি এবং আগামী বছরের বাজেটে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর বিরোধিতা করে অনেকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মতামত দেন। অনেকে আবার দেশে কাজের সুযোগ কমে যাওয়া নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

তা ছাড়া লাইসেন্সবিহীন সংস্থায় বিনিয়োগ করে তারা কীভাবে টাকা খুইয়েছেন তারও বিশদ বর্ণনা দিতে থাকেন ইরানের সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিকমাধ্যম টেলিগ্রামে।

এর পর গত ২৮ ডিসেম্বর থেকে কয়েকটি শহরে বিক্ষোভ শুরু হয়। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের আকাশছোঁয়া মূল্যের কারণে বিক্ষোভ শুরু হলেও বিক্ষোভকারীরা এক পর্যায়ে সরকার পরিবর্তনের দাবি জানায়।

বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে এক পুলিশ কর্মকর্তাসহ অন্তত ২৩ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন সহস্রাধিক মানুষ। এ ছাড়া প্রায় ৫০০ বিক্ষোভকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বুধবার ইরানের জনগণ রাজপথে নেমে এসে সরকারের প্রতি সমর্থন জানায়। এ সময় তারা বিক্ষোভকারীদের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারী ও তাদের বিদেশি এজেন্ট আখ্যা দিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।