ব্রেকিং নিউজ

রাত ২:১৬ ঢাকা, বুধবার  ১২ই ডিসেম্বর ২০১৮ ইং

‘বিএনপি বেইমানির ফল পাচ্ছে’

বিএনপির বিরুদ্বে বেইমানির অভিযোগ তুলে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত এইচএম এরশাদ বলেছেন, বিএনপি আমার ওপর যে অন্যায়-অবিচার করেছে, আজ তাদের ওপর তা হচ্ছে।
রোববার দুপুরে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা জাতীয় পার্টির সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে এইচএম এরশাদ বলেন, যে দল আমার সর্মথন নিয়ে ক্ষমতায় গিয়েছিল, সে দল আমার স্ত্রী-সন্তানসহ আমাকে জেলে দিয়েছে। আমাকে ফাঁসি দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছিল, আমার ছেলের জীবন নষ্ট করা হয়েছে। জাতীয় পার্টিকে ধ্বংস করতে চেয়েছিল।
তিনি বলেন, আল্লাহর রহমতে জনগণের ভালোবাসায় আমাকে তা করতে পারেনি। কারণ আমি জনগণের কাছে নিন্দিত নয়, নন্দিত ছিলাম। আমার ওপর যে অন্যায়-অবিচার করা হয়েছে, আজ তাদের ওপর তা হচ্ছে।
একইসঙ্গে আওয়ামী লীগের সমালোচনা করে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান বলেন, তারাও আমার সমর্থন নিয়ে ২১বছর পর ক্ষমতায় এসে একই আচরণ করছে। আমার দল ভাঙ্গার চেষ্টা করেছে, নাঙ্গলের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। আমি কোথাও সুবিচার পাইনি।
তিনি বলেন, দেশে আজ আইনের শাসন নেই, হিন্দুদের জমি দখল হয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে আমি সম্মান করি। কিন্তু এই শোকের মাসে হাজারো লীগের নামে কিভাবে চাঁদাবাজি হয়েছে এ দেশের জনগণ তা দেখেছে।
এরশাদ বলেন, জনগণের ভালোবাসা নিয়ে জাতীয় পার্টি আবারো ক্ষমতায় আসবে। মানুষ পরিবর্তন চায়। কারণ দেশে আজ গণতন্ত্র নেই, সুশাসন নেই। ভোটের অধিকার, ভাতের অধিকার ও বেচেঁ থাকার অধিকার নেই।
তিনি বলেন, এখন মানুষ প্রতিবাদের ভাষাও হারিয়ে ফেলেছে। প্রতিবাদ করলেই তার লাশ পরদিন রাস্তাঘাটে পড়ে থাকে, না হয় গুম করা হয়। তাই মানুষ আজ ভীত-সন্ত্রস্ত। গ্যাসের মূল্য বাড়ানো হয়েছে। সরকার জনগণের দুঃখ বুঝে না। এজন্য মানুষ জনগণের সরকার চায়। আমরাই সেই জনগণের প্রতিনিধি। তাই আগামীতে জনগণ জাতীয় পার্টিকে ক্ষমতায় দেখতে চায়।
সাবেক এই রাষ্ট্রপতি বলেন,  দেশের মানুষ জাতীয় পার্টির আমলে সুখে-শান্তিতে ছিল। আজ তা নেই।

সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক নুরুল ইসলাম মিলন এমপির সভাপত্বিতে সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- জাতীয় পার্টির মহাসচিব জিয়াউদ্দিন বাবলু এমপি, পানিসম্পদ মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম, যুগ্ম-মহাসচিব নুরুল ইসলাম নুরু, ঢাকা মহানগরী উত্তরের সভাপতি এসএম ফয়সাল চিশতী, অধ্যক্ষ রওশন আরা মান্নান এমপি প্রমুখ।

শীর্ষ মিডিয়া