ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৪:৪৬ ঢাকা, বুধবার  ২৩শে মে ২০১৮ ইং

বিএনপি নয় বরং সরকারই পুলিশি লাইফ সাপোর্টে আছে

চট্টগ্রামে বিএনপি নেতৃবৃন্দরা বলেছেন, আওয়ামী লীগের কিছু মন্ত্রী বলেছেন বিএনপি নাকি লাইফ সাপোর্টে আছে, আমরা তাদেরকে বলতে চাই বিএনপি নয় বরং আওয়ামী সরকারই পুলিশি লাইফ সাপোর্টে আছে।  কারণ পুলিশ ছাড়া তাদের পাশে আজ জনগণ নেই। বিএনপির পাশে এই দেশের জনগণ রয়েছে তাই বিএনপিকে সরকার এত ভয় পায়। ভয় পায় বলেই বিএনপি নেতাকর্মীদের জেল-জুলুমের মাধ্যমে দমন করার অপচেষ্টা করছে সরকার। রোববার নগরীর রিমা কমিউনিটি সেন্টারে  চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপি আয়োজিত ইফতার ও দোয়া মাহফিলে বিএনপি নেতারা এসব কথা বলেন।

উত্তর জেলা বিএনপির সদস্য সচিব কাজী আবদুল্লাহ আল হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ও উত্তর জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি গিয়াস কাদের চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন মহিলা দলের কেন্দ্রীয় শিশু বিষয়ক সম্পাদিকা রুবি কবির, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ডা: শাহাদাত হোসেন, জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি  মনিরুল ইসলাম ইউসুফ,  নগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান।

এতে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বারের সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট এনামুল হক,  মহিলা কাউন্সিলর ও বিএনপি নেত্রী মনোয়ারা বেগম মনি,  চবি’ শিক্ষক সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক নসরুল কাদের চৌধুরী, নগর ছাত্রদলের সভাপতি গাজী সিরাজ প্রমুখ।

খালেদা জিয়া ‘ব্যর্থ প্রধানমন্ত্রী’ আর বিএনপি লাইফ সাপোর্টে আছে : রেলমন্ত্রী

উল্লেখ্য, শনিবার খালেদা জিয়াকে ‘ব্যর্থ প্রধানমন্ত্রী’ উল্লেখ করে বিএনপি বর্তমানে লাইফ সাপোর্টে আছে বলে মন্তব্য করেছিলেন রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক।  চট্টগ্রাম-নাজিরহাট রুটে ডিজেল ইলেকট্রনিক মাল্টিপল ইউনিট ট্রেনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, খালেদা জিয়া গণআন্দোলন কাকে বলে সেটা বোঝেন না। সে কারণে বিএনপির এখন রুগ্ন দশা। এই বিএনপি এখন দুই ভাগে বিভক্ত। এক পক্ষে খালেদা জিয়া ও তার ছেলে তারেক রহমান নাশকতাকারী বিএনপি-জামায়াতকে লালন পালন করছে। বিএনপিতে কিছু ভালো নেতা রয়েছেন যারা এসব সমর্থন করেন না। এ কারণে তারা অন্য পক্ষ হয়ে বিএনপি থেকে দূরে সরে যাচ্ছেন।

খালেদা জিয়াকে ‘ব্যর্থ প্রধানমন্ত্রী’ উল্লেখ করে রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক বলেন, খালেদা জিয়া দুইবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ক্ষমতায় থাকলেও রেলওয়ের উন্নয়নে কোন কাজ করেন নি। কখন কোথায় কীভাবে কাজ করতে হবে তা তিনি জানেন না। তাই তার সময়ে রেলওয়ে ছিল অবহেলিত।

তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে বিএনপির সময়ের পাহাড় সমান সমস্যার বোঝা মাথায় নিয়ে কাজ শুরু করে। রেলওয়েকে আলাদা মন্ত্রণালয়ে রূপ দেয়। রেলের জন্য বিগত সময়ের তুলনায় বেশি বাজেট বরাদ্দ করে। রেলওয়েকে নিরাপদ, সাশ্রয়ী, আরামদায়ক যোগাযোগ ব্যবস্থায় পরিণত করতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব কমল কৃষ্ণ ভট্টাচার্য। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন সাংসদ মঈনুদ্দিন খান বাদল, রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি সাংসদ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোসলেম উদ্দিন, রেলওয়ের মহাপরিচালক আমজাদ হোসেন, রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক মোজাম্মেল হক।