ব্রেকিং নিউজ

রাত ৯:২৭ ঢাকা, বুধবার  ২০শে জুন ২০১৮ ইং

ওবায়দুল কাদের

‘বিএনপি নয়, নির্বাচনে আ. লীগই বিজয়ী হবে’ – কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার যেভাবে দেশকে উন্নতির দিকে নিয়ে গেছে তাতে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগই বিজয়ী হবে।

তিনি বলেন, মানুষ উন্নয়নের দল আওয়ামী লীগকেই ক্ষমতায় আনবে। কারণ আওয়ামী লীগই দেশের একমাত্র রাজনৈতিক দল যে দলের নেতৃত্বে দেশ উন্নতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

কাদের বলেন, বিএনপি দেশের জন্য এমন কোন কাজ করেনি যার জন্য জনগণ তাদের ভোট দিয়ে বিজয়ী করবে। আর তাই বিএনপিকে নিয়ে চিন্তা করার কিছুই নেই।

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আজ বিকেলে মুন্সীগঞ্জ শিল্পকলা একাডেমীতে জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির আন্দোলনের মরাগাঙে আর জোয়ার আসবেনা। বিএনপি এখন ঘরে বসে মিথ্যাচারের ভাঙ্গা রেকর্ড বাজাচ্ছে। বিএনপির মিথ্যাচার তাদের ক্ষমতায় আনবেনা।

তিনি বলেন, পদ্মা সেতু বাস্তবায়নে শেখ হাসিনাই মূল শক্তি। শেখ হাসিনার হাত দিয়েই পদ্মা সেতুর কাজ শেষ হবে। ইতোমধ্যে পদ্মা সেতুর দ্বিতীয় স্প্যান আজ (রোববার) বসানো হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের সভাপতিত্বে প্রতিনিধি সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য মো. মোজাফফর হোসেন পল্টু, মুকুল বোস, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি, আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য আব্দুল মান্নান খান, দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস এমপি, মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা ফজিলাতুন্নেছা ইন্দিরা এমপি, কেন্দ্রীয় শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ, মুন্সীগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান প্রমুখ। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা বিচার নিয়ে কোন আপোষ করিনা। বিচার বিভাগ স্বাধীনভাবে কাজ করছে। আওয়ামী লীগের অনেক মন্ত্রী-এমপি বিচারের মুখোমুখি আছে। যেই অপরাধ করবে, সে শাস্তি ভোগ করবে। বিএনপির সময় এমনটা হয়নি।

তিনি বলেন, আগুন, বোমা ও সন্ত্রাস নিয়ে কেউ এদেশে ক্ষমতায় আসতে পারবেনা। বিএনপি গত নয় বছরেও আন্দোলন জমাতে পারেনি, আর পারবেও না।

এখন থেকে শুধু নৌকার জন্য ভোট চাইতে হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তিন মাস অন্তর-অন্তর নেত্রীর কাছে রিপোর্ট যায় কার জনপ্রিয়তা কেমন, এই রিপোর্ট দেখেই মনোনয়ন দেয়া হবে।

সভায় মুন্সীগঞ্জ জেলার ছয় উপজেলার দলীয় নেতা-কর্মীরা অংশ নেন।