ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৪:২০ ঢাকা, শুক্রবার  ২১শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

‘বিএনপি নেতাদের ঈদ’

দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার পর এলো খুশির ঈদ।  সারা বিশ্বের সঙ্গে বাংলাদেশেও উদযাপিত হচ্ছে ঈদুল ফিতর, মুসলমান সম্প্রদায়ের সব থেকে বড় ধর্মীয় উৎসব।

দেশের নানা শ্রেণি-পেশার ব্যস্ত নাগরিকরা ঈদ উদযাপন করতে ছুটে গেছেন পরিবারের কাছে। প্রিয়জনদের সঙ্গে ভাগাভাগি করবেন  ঈদের আনন্দ। রাজনীতিবিদরাও এর বাইরে নন।

বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের অনেক নেতা এবার ঢাকায় ঈদ উদযাপন করছেন।  অনেকে আবার নিজ নির্বাচনী এলাকায় দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গেও ঈদ করবেন।

রাজধানীতে থাকা বিএনপি নেতারা ঈদের নামাজ শেষে দলীয় চেয়ারপারসনের ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন।

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া প্রতি বছরের ন্যায় এবারও ঢাকায় ঈদ উদযাপন করবেন। ঈদের দিন দুপুর ১২টা থেকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে কূটনীতিক, বিশিষ্ট নাগরিক, দলীয় নেতাকর্মী ও সর্বসাধারণের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন তিনি।

শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে খালেদা জিয়া প্রথমে শেরেবাংলা নগরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কবর এবং পরবর্তীতে বনানীতে ছোট ছেলে প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর কবর জিয়ারত করবেন। এরপর বাসায় গিয়ে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সময় কাটাবেন।

বিগত কয়েক বছর ধরে স্ত্রী ও একমাত্র কন্যাকে নিয়ে ইংল্যান্ডে ঘরোয়া পরিবেশে ঈদ উদযাপন করেন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান। তবে এবার তারেক রহমানের পরিবারের সঙ্গে তার প্রয়াত ছোট ভাই আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী ও দুই মেয়ে ঈদ উদযাপন করবেন।

আন্তর্জাতিক একটি সেমিনারে অংশ নিতে এখন অস্ট্রেলিয়ায় রয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ফলে এবার সেখানেই ঈদ করবেন তিনি।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, এম কে আনোয়ার, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, মির্জা আব্বাস, লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান ও ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন ঢাকায় ঈদ করবেন।

ঈদের নামাজ পড়ে তারা দলীয় চেয়ারপারসনের ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন।

ঢাকায় অবস্থানরত স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় চেয়ারপারসনের ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন।

স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য তরিকুল ইসলাম নিজ নির্বাচনী এলাকা যশোরে ঈদ করবেন। শারীরিকভাবে অসুস্থ তরিকুল বর্তমানে সেখানেই অবস্থান করছেন।

সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ মুন্সিগঞ্জে এবং সহ-দপ্তর সম্পাদক কৃষিবিদ শামীমুর রহমান শামীম বাগেরহাটে ঈদ করবেন।

স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন। সেখানেই তিনি ঈদ করবেন।

স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য নজরুল ইসলাম খান ওমরাহ করতে সৌদি আরব আছেন। ফলে সেখানে ঈদ করবেন তিনি।

স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ গাজীপুরের কাপাসিয়ায় ঈদের নামাজ পড়লেও ওইদিনই ঢাকায় ফিরবেন তিনি।

দলের ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড. ওসমান ফারুক ও অর্থনীতি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সালাম যুক্তরাষ্ট্রে ঈদ করবেন।

অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের রাজধানী শিলংয়ের আদালতে বিচারাধীন রয়েছেন বিএনপির সাবেক যুগ্ম মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমেদ। ফলে তাকে সেখানেই ঈদ করতে হচ্ছে।

দলের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, মীর মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন; সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম আকবর খন্দকার তাদের নির্বাচনী এলাকা চট্টগ্রামে ঈদ করবেন বলে জানা গেছে।

ভাইস চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী, মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, বেগম সেলিমা রহমান; চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অধ্যাপক ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, সাবিহউদ্দিন আহমেদ, ইনাম আহমেদ চৌধুরী, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন এবং যুগ্ম মহাসচিব হারুন-অর রশিদ ঢাকায় ঈদ করবেন।

দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স ও শামা ওবায়েদ, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন, ঢাকা বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বাবুল, সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু চেয়ারপারসনের ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন নোয়াখালীতে, মজিবর রহমান সরোয়ার বরিশাল, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু নাটোর, নজরুল ইসলাম মঞ্জু খুলনা, ডা. শাহাদাত হোসেন চট্টগ্রাম এবং সাবেক যুগ্ম মহাসচিব মো. শাহজাহান নিজ নির্বাচনী এলাকা নোয়াখালীতে ঈদ করবেন।

কারাগারে করবেন যে নেতারা: বিএনপির অনেক নেতার ঈদ কাটবে কারাগারে। নেতারা কারাগারে থাকলেও ঈদে তাদের স্মরণ করছে বিএনপি। কারাগারে থাকা নেতাকর্মী কিংবা তাদের পরিবারের কাছে দলের পক্ষ থেকে পৌঁছে দেয়া হয়েছে ঈদ উপহার।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম পিন্টু ও সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, যুগ্ম-মহাসচিব আসলাম চৌধুরী, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের বরখাস্তকৃত মেয়র অধ্যাপক আবুদল মান্নান, সিলেটের বরখাস্তকৃত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ও ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশিদ হাবিবসহ তৃণমূলের অনেক নেতাকর্মীও এবার কারাগারে ঈদ করবেন।

এছাড়া বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সদস্য সচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেল ও সাবেক যুগ্ম-মহাসচিব বরকত উল্লাহ বুলু আত্মগোপনে রয়েছেন। তারা ফেরারি হিসেবে ঈদ করবেন।