ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৬:৫১ ঢাকা, সোমবার  ২২শে অক্টোবর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

বিএনপি নিজেদেরকে ভাসমান হিসেবে দাঁড় করিয়েছে: সৈয়দ আশরাফ

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং দফতরবিহীন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বলেছেন, বিএনপি গত নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করায় রাজনীতিতে তারা নিজেদের ভাসমান হিসেবে দাঁড় করিয়েছেন। তিনি সংবিধান সম্মতভাবে আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি আহবান জানিয়েছেন।
তিনি বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে আওয়ামী যুবলীগের উদ্যোগে আয়োজিত ইফতার ও দোয়া মাহফিল পূর্ব সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ আহবান জানান।
সৈয়দ আশরাফ বলেন, বিএনপি গত নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করায় রাজনীতিতে তারা নিজেদের ভাসমান হিসেবে দাঁড় করিয়েছেন। কেননা গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে নির্বাচন ক্ষমতা পরিবর্তনের একমাত্র প্রক্রিয়া।
নির্বাচন ছাড়া গণতন্ত্র চলতে পারে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ প্রক্রিয়া ব্যর্থ হলে অশুভ শক্তির হাতে ক্ষমতা চলে যাবে।
সংগঠনের প্রেসিডিয়াম সদস্য শহীদ সেরনিয়াবাতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হারুনুর রশিদ।
সৈয়দ আশরাফ বলেন, আওয়ামী লীগ ১৯৪৯ সালে প্রতিষ্ঠার পর ১৯৫৮ সালে নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় যায়। এমনকি স্বৈরশাসক আইয়ূব খানের মৌলিক গণতন্ত্রের প্রক্রিয়ার মধ্যেও নির্বাচনে আওয়ামী লীগ অংশগ্রহণ করে।
সে নির্বাচনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ফাতিমা জিন্নাহকে সমর্থন করেছিলেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ নির্বাচনের মাধ্যমেই আওয়ামী লীগ মানুষের ঘরে ঘরে গিয়ে মানুষের ভোটাধিকার না থাকার বিষয়টি প্রচার করেছিল।
আওয়ামী লীগ এ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে ভুল করেছিল বলে বামপন্থীরা মন্তব্য করেছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সামরিক শাসক আইয়ুব খান, ইয়াহিয়া খান, জিয়াউর রহমান এবং হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের সামরিক শাসনের সময়ও কোন নির্বাচন বর্জন করেনি।
বিভিন্ন ইফতার মাহফিলে বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া জার্মানের সাবেক প্রচারমন্ত্রী গোয়েবলসের কায়দায় মিথ্যাচার করছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, ইফতার মাহফিলে দেয়া বেগম খালেদা জিয়ার বক্তব্যে কোন সত্য কথা শুনতে পাই নাই। একজন রোজাদার মানুষ কিভাবে এভাবে মিথ্যা কথা বলতে পারে তা আমার জানা নেই।
আশরাফ বলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া নির্বাচনে এলেন না। দেশে সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টির মাধ্যমে নির্বাচন প্রতিহত করতে চাইলেন। নির্বাচন প্রতিহতের নামে দেশের মানুষকে হত্যা করলেন এবং জ্বালাও-পোড়াওয়ের মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় সম্পদ ধ্বংস করলেন।
তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার এ কর্মকান্ডের প্রায়চিত্ত বাংলার মাটিতে একদিন হবেই। কেননা দু’একবার মিথ্যা কথা বলে পার পাওয়া গেলেও বারবার পার পাওয়া যায় না।