Press "Enter" to skip to content

বিএনপি তারেক রহমানের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ : রিজভী

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বে সব পর্যায়ের নেতাকর্মী ঐক্যবদ্ধ।

শুক্রবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ মিছিল শেষে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

ঈদের আগে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে এ বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করা হয়।

সমাবেশে রিজভী বলেন, বিএনপির সিনিয়র নেতা থেকে তৃণমূল পর্যন্ত সব পর্যায়ের নেতাকর্মীর সঙ্গে প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রাখছেন তারেক রহমান। তিনি বিভিন্ন মাধ্যমে তাদের সঙ্গে কথা বলছেন, খোঁজখবর রাখছেন এবং সাংগঠনিক নির্দেশনা দিচ্ছেন।

বিএনপির এ নেতা আরও বলেন, দলকে গতিশীল রাখতে ও সাংগঠনিক তৎপরতা বাড়াতে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক টিম ইতিমধ্যে প্রায় সব জেলা সফর করে সাংগঠনিক প্রতিবেদন পেশ করেছেন।

‘বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকরা সংশ্লিষ্ট জেলার সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে পরামর্শ করে সাংগঠনিক রিপোর্ট পেশ করছেন এবং সেই অনুযায়ী দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দলের পরবর্তী কার্যক্রমের দিকনির্দেশনা দিচ্ছেন।’

রিজভী বলেন, তারেক রহমানের নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন। দলের কমিটি গঠন, বিভিন্ন কর্মসূচি প্রণয়ন সবই দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দলের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে পরামর্শ করে বাস্তবায়ন করছেন।

এ সময় তিনি বিএনপিকে ভাঙার সরকারের কোনো অপচেষ্টাই সফল হয়নি বলে মন্তব্য করেন।

রিজভী বলেন, জাতীয় নির্বাচনের আগের রাতে ব্যালটে সিল মেরে সরকার গঠন করেও তাদের স্বস্তি নেই। দেশ-বিদেশে বিতর্কিত সেই নির্বাচন বৈধতা পায়নি। তাই বিভিন্ন সংস্থা দিয়ে সরকার বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে কুৎসা রটানোর অপচেষ্টা করছে। কিন্তু তাতে লাভ হয়নি।

তিনি বলেন, সরকার ও গোয়েন্দা সংস্থা নানা কূটকৌশল করে বিএনপির মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করতে না পেরে এখন কিছু গণমাধ্যমকে দিয়ে মনগড়া কল্পকাহিনি রচনা করছেন, যার সঙ্গে বাস্তবতার কোনো মিল নেই।

রিজভী আরও বলেন, গত দুদিন আগে ইংরেজি পত্রিকার সম্পাদক মাহফুজ আনাম বলেছেন, যা চাচ্ছি তা লিখতে পারছি না। অনেক ইস্যুতে লেখা উচিত, যেমন ধরুন- গত নির্বাচন। এ ছাড়া আরও ছোট নির্বাচনগুলো নিয়ে লেখা উচিত, যা লেখা ও বলা উচিত তা ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও লিখতে ও বলতে পারছি না।

‘এ হলো বর্তমানে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা! কীভাবে গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে যে, মাহফুজ আনামের মতো বরেণ্য সাংবাদিকরাও কলম চালাতে সাহস পান না।’

রিজভী বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মাধ্যমে সরকারের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও সংস্থাগুলো কার্যত গণমাধ্যমের ‘সুপার এডিটর’ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। গণমাধ্যমের কোন খবর ছাপানো যাবে, কোনটি ছাপানো যাবে না- এসব কিছু তাদের খেয়ালখুশির ওপর নির্ভর করছে। আর সে কারণেই বিরোধী দলের বিরুদ্ধে মিথ্যা সাজানো গল্প বানিয়ে দিচ্ছে গোয়েন্দা সংস্থা, আর সেগুলোই কিছু মিডিয়া হেডলাইন করে ছাপাচ্ছে।

রুহুল কবির রিজভীর নেতৃত্বে মিছিলে অংশগ্রহণ করেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য টিএস আইয়ুব, ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সহসভাপতি আলমগীর হোসেন সোহান, সহসাধারণ সম্পাদক শরীফুল ইসলাম মিঠু, সহসাংগঠনিক সম্পাদক কাজী ইফতে খায়রুজ্জামান শিমুল, ছাত্রদল নেতা জিসান, সুমন হোসেনসহ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের কয়েক শতাধিক নেতাকর্মী।

শেয়ার অপশন: