Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ৯:২৭ ঢাকা, মঙ্গলবার  ১৩ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বিএনপির দুঃসহ আমলে মানুষ ১০ ঘন্টার লোডশেডিং যন্ত্রনায় ছিল: প্রধানমন্ত্রী

বিএনপি-জামায়াতের দুঃসহ দিনগুলোতে মানুষকে ১০ থেকে ১২ ঘন্টা লোডশেডিংয়ের যন্ত্রনা ভোগ করতে হতো উল্লেখ করে  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ২০২১ সালের মধ্যে সবার জন্য বিদ্যুৎ সুবিধা নিশ্চতকল্পে উৎপাদন ক্ষমতা ২৪ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীত করার কার্যক্রম চলছে। চলতি বছরেই জাতীয় গ্রীডে ১ হাজার ৮৪০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ যোগ হবে।

প্রধানমন্ত্রী আজ সংসদে তাঁর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারি দলের সদস্য বেগম ফজিলাতুন নেসা বাপ্পির এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ২০০১ সালে ক্ষমতা হস্তান্তরের সময় বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা ছিল ৪ হাজার ৩শ’ মেগাওয়াট। অথচ ২০০৯ সালে আবার যখন ক্ষমতা গ্রহণ করি তখন পেয়েছিলাম মাত্র ৩ হাজার ২শ’ মেগাওয়াট। অর্থাৎ বিএনপি-জামায়াতের দুঃশাসনে বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ১১শ’ মেগাওয়াট কমে গিয়েছিল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াতের দুঃসহ দিনগুলোতে মানুষকে ১০ থেকে ১২ ঘন্টা লোডশেডিংয়ের যন্ত্রনা ভোগ করতে হতো। বিদ্যুতের জন্য আন্দোলন করতে গিয়ে কানসাটে মানুষকে প্রাণ দিতে হয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, সরকার মাত্র ৫ বছরে বিদ্যুৎ উৎপাদন তিনগুণ বৃদ্ধি করে ২০১৩ সালে ১ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীত করে। দ্বিতীয় মেয়াদে মাত্র ৩ বছরে বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ১৫ হাজার ৩৫১ মেগাওয়াটে উন্নীত করেছে।

সরকারি দলের সদস্য মামুনুর রশিদ কিরণের অপর এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একমাত্র আওয়ামী লীগই পারবে, বাংলাদেশকে জাতির জনকের স্বপ্নে উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করতে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশ পেরিয়ে একটি শান্তিপূর্ণ, সমৃদ্ধ, সুখী এবং উন্নত জনপদে পরিণত করার ব্যাপারে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ।

অর্থনৈতিক উন্নয়ন প্রসঙ্গে ১৯৭৪ সালের ১৫ ডিসেম্বর জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষণের অংশবিশেষ উদ্ধৃত করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকারের নেতৃত্বে বাংলাদেশ নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশের মর্যাদা অর্জন করেছে। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, একমাত্র আওয়ামী লীগেই পারবে, বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের এবং ২০৪১ সালের মধ্যে জাতির জনকের স্বপ্নের উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে।’