Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১১:৫৮ ঢাকা, বুধবার  ২১শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

“বিএনপি’র পৌর নির্বাচনে অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত প্রমাণ করে বর্তমান সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব”

nasim2আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি’র অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত প্রমাণ করে বর্তমান সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব।
আজ শুক্রবার শহীদ ডা. মিলনের ২৫তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকা মেডিকেল কলেজে মিলনের সমাধিস্থলে বাংলাদেশ মেডিক্যাল এ্যসসিয়েসান (বিএমএ) আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের তৎকালীন যুগ্মমহাসচিব ও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষক ডা. শামসুল আলম খান মিলন ১৯৯০ সালের ২৭ নভেম্বর ঘাতকদের হাতে শহীদ হন।
বিএমএ সভাপতি অধ্যাপক ডা. মাহমুদ হাসানের সভাপতিত্বে সভায় তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, শহীদ মিলনের মা সেলিনা আক্তার, আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. বদিউজ্জমান ভূঁইয়া ডাবলু, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, গণতন্ত্রী পার্টির নেতা ডা. শাহাদাৎ হোসেন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, সামনের পৌর নির্বাচনে বিএনপির পক্ষে জনগণ কি অবস্থান নেয়, তা দেখতে চাই। জনগণ স্বাধীনতা বিরোধী শক্তিকে ভোট দেবে না। এ নির্বাচনেও জনগণ আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে ভোট দেবে।
নির্বাচনে বিএনপি’র অংশ নেয়ার ব্যাপারে তিনি বলেন, জ্বালাও-পোড়াও রাজনীতি থেকে বিএনপি যে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে, সেই ধারা থেকে বিএনপি ফিরে আসুক সেটাই আমরা চাই।
মিলনের স্মৃতি চারণ করে তিনি বলেন, মিলনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে গণতান্ত্রিক আন্দোলন চূড়ান্ত রূপ নিয়েছিল। যে লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যকে সামনে নিয়ে মিলনের আত্মহুতি, তা বাস্তবায়ন করতে হলে সকল বিভেদ ভুলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরো শক্তিশালী করতে হবে।
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, মিলনের রক্তে গণতন্ত্র উদ্ধার করেছি, গণতন্ত্র কিনেছি। সামরিক শাসকদের সঙ্গে মিটমাট করে গণতন্ত্র উদ্ধার হয় না। সামরিক শাসকদের মত জঙ্গিবাদকে উচ্ছেদ করলে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হবে।
বেগম খালেদা জিয়ার সমালোচনা করে তিনি বলেন, জঙ্গিবাদ ও খালেদা জিয়াকে আলাদা করে দেখার কিছু নেই। বেগম জিয়া ও তার দোসরদের মোকাবেলা করা বর্তমানে আমাদের চ্যালেঞ্জ।
শহীদ মিলনের মা সেলিনা আকতার বলেন, ২৫ বছর পার হয়ে গেলেও মিলনের খুনি স্বৈরাচার এরশাদের বিচার হয়নি। বরং সরকারে অংশ নিয়ে বাংলাদেশের রাজনীতিকে কলুষিত করছে। তিনি অবিলম্বে মিলন হত্যার বিচার দাবি করেন।