Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৮:২৩ ঢাকা, মঙ্গলবার  ১৩ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

বিএনপির কর্মীসভা ত্রিমুখী সংঘর্ষে পন্ড

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় দিনাজপুর লোকভবনে জেলা বিএনপির যৌথ কর্মীসভায় কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে ত্রিমুখী সংর্ঘষে পন্ড হয়ে গেছে দিনাজপুর জেলা বিএনপির যৌথ কর্মীসভা। মঞ্চসহ কেন্দ্রীয় নেতা মাহবুবুর রহমানের গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। এসময় আহত হয় অন্তত ৪ জন। পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনে। পরে বিকেল ৩টায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে কেন্দ্রীয় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু এ ঘটনার জন্য সরকারি দলের ইন্ধনকে দায়ী করেন। ঘটনা তদন্তে গঠিত কমিটিকে সাতদিনের মধ্যে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য বলা হয়।

সূত্রমতে, দল নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে দিনাজপুর লোকভবনে  সকালে যৌথ কর্মীসভার আয়োজন করে জেলা বিএনপি। এতে উপস্থিত ছিলেন- কেন্দ্রীয় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক সংসদ সদস্য লে. জে. মাহবুবুর রহমান, কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু।

শুরুতে কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতেই মঞ্চ দখলকে কেন্দ্র করে জেলা সভাপতি আলহাজ্ব লুৎফর রহমান মিন্টু, সাধারণ সম্পাদক মুকুর চৌধুরী ও দলীয় প্রধান বেগম জিয়ার বড় বোন মরহুম খুরশীদ জাহান হকের বড় ছেলে শাহরিয়ার আকতার হক ডন সমর্থিত জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আশরাফুল ইসলামের সমর্থকদের মধ্যে প্রথমে তর্কবিতর্ক শুরু হয়। এরপর তা হাতাহাতিতে গড়ায়। পরে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। এক পর্যায়ে ত্রিমুখী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে নেতাকর্মীরা।

এ সময় নেতাকর্মীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লে ছুটোছুটি শুরু করে। এ ঘটনায় কেউ আহত না হলেও মঞ্চে ব্যাপক ভাঙচুর করা হয়। এ ঘটনায় বিব্রত কেন্দ্রীয় নেতারা ক্ষোভে সভাস্থল ত্যাগ করে চলে যান।

Dinajpur12-12-1পরে জেলা সভাপতি আলহাজ্ব লুৎফর রহমান মিন্টু ও বেগম জিয়ার বড় বোন মরহুম খুরশীদ জাহান হকের বড় ছেলে শাহরিয়ার আকতার হক ডন সমর্থিত সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আশরাফুল ইসলামের সমর্থকরা জেলা বিএনপির কার্যালয় দখলে নেয়ার চেষ্টা চালায়। এ সময় আবারো উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে আলহাজ্ব আশরাফুল ইসলাম জেলা বিএনপির কার্যালয়ে প্রবেশ করে সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য দেন। এসময় তিনি বর্তমান কমিটি ভেঙে দেয়ার দাবি জানান। অপ্রীতিকর পরিস্থিতির কারণে কর্মীসভা স্থগিত করা হয়েছে।
ত্রিমুখী সংঘর্ষে কর্মীসভা ভণ্ডুলের কারন জেলা বিএনপি কয়েকটি অংশে বিভক্ত হয়ে আছে। এ কারণে প্রতিটি অনুষ্ঠানে কোনো না কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটছে।

এসময় জেলা বিএনপির এক অংশ মিছিল নিয়ে লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে। এনিয়ে হট্টগোল শুরু হলে পরে লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমানের গাড়ি ভাঙচুর করা হয়।

FOLLOW US: