ব্রেকিং নিউজ

সন্ধ্যা ৬:৫৬ ঢাকা, বুধবার  ২৬শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

বার্গম্যানকে দন্ডের বিষয়ে বিবৃতিদাতাদের ব্যাখ্যা চেয়েছে ট্রাইব্যুনাল

আদালত অবমাননার দায়ে দন্ডিত ব্রিটিশ সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যানের সাজার বিষয়ে বিবৃতি দেয়া নাগরিকদের কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২।
আজ বুধবার ট্রাইব্যুনাল-২ এর চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বিচারিক প্যানেল এ আদেশ দেয়। আদেশে আগামী ২৭ জানুয়ারির মধ্যে তাদেরকে হাজির হয়ে অথবা আইনজীবীর মাধ্যমে ওই বিবৃতির বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।
গত ২০ ডিসেম্বর দৈনিক প্রথম আলোতে ‘বার্গম্যানের সাজায় ৫০ নাগরিকের উদ্বেগ’ শীর্ষক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। পরে মানবাধিকারকর্মী খুশী কবির বিবৃতি থেকে তার নাম প্রত্যাহার করে নেন।
আদেশে আজ ট্রাইব্যুনাল আইনজীবী ড. শাহদীন মালিকসহ ৪৯ জনকে পত্রিকায় প্রকাশিত বিবৃতির জন্য ব্যাখ্যা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে। গত ২৮ ডিসেম্বর ট্রাইব্যুনালের আদেশে বলা হয়, ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে সংশ্লিষ্ট পত্রিকাকে ওই বিবৃতির অনুলিপি ট্রাইব্যুনালে দাখিল করতে হবে। সেই অনুসারে ওই বিবৃতির অনুলিপি জমা দেয়া হয়।
ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার মো. মোস্তাফিজুর রহমান আদেশের বিষয়টি সাংবাদিকদের আজ নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, এর আগে বিবৃতি প্রদানকারী হানা শামস আহমদের ঠিকানা জমা দিয়েছিল দৈনিক প্রথম আলো কর্তৃপক্ষ। বাকি ৪৯ জনের ঠিকানাসহ তালিকা দাখিল করেন ড. শাহদীন মালিক।
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ব্লগে আপত্তিকর মন্তব্য করায় সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যানের বিরুদ্ধে আনা আদালত অবমাননার অভিযোগে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করে গত ২ডিসেম্বর রায় দেয় ট্রাইব্যুনাল-২। এ অর্থ অনাদায়ে তাকে ৭দিনের জেল ভোগ করতে হবে বলে রায়ে বলা হয়। রায়ে ঐতিহাসিক মীমাংসিত কোনো বিষয় নিয়ে সমালোচনা না করতে বার্গম্যানকে সর্বোচ্চ সতর্ক করা হয়। ব্লগে লেখার মাধ্যমে তিনি ট্রাইব্যুনালের কর্তৃত্বকে চ্যালেঞ্জ, বিচারাধীন বিষয় নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানো এবং ট্রাইব্যুনালকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে বলে রায়ের পর্যবেক্ষণে বলা হয়।
ট্রাইব্যুনাল সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ব্লগে লেখায় ডেভিড বার্গম্যানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশনা চেয়ে গতবছর ২০ ফেব্রুয়ারি আবেদন করেন আইনজীবী আবুল কালাম আজাদ। বৃটিশ সাংবাদিক ডেভিড বার্গম্যান বর্তমানে ঢাকা থেকে প্রকাশিত ইংরেজি দৈনিক ‘দ্যা নিউএজ’র বিশেষ প্রতিনিধি।