ব্রেকিং নিউজ

বিকাল ৪:২৬ ঢাকা, মঙ্গলবার  ১৬ই অক্টোবর ২০১৮ ইং

বাংলাদেশে জ্বালানীবিহীন গাড়ী নির্মান

শীর্ষ মিডিয়া ২৮ অক্টোবর ঃ  গাড়ী উৎপাদন তাও আবার বাংলাদেশে একটি অকল্পনীয় বিষয়! শুধু তাই নয় গাড়ীটি আবার জ্বালানী বিহীন এটি তো আরো আশ্চর্যের বিষয়! না এসব আর স্বপ্ন নয় বাস্তব। উত্তরবঙ্গের প্রধান শহর বগুড়ায় এটি নির্মিত হয়েছে। আর এই বিশাল কাজটি করেছেন বগুড়াসহ সারা বাংলাদেশের স্বসামধন্য প্রতিষ্ঠান রহিম ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ।
চার চাকার এই গাড়িটি ২৫ টাকার কার্বনদণ্ডে চলবে আট ঘণ্টা। এ গাড়িতে ডিজেল, পেট্রোল বা অন্যকোনও জ্বালানির ইঞ্জিন অয়েল প্রয়োজন নেই। ঘণ্টায় চলবে ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার বেগে। জ্বালানি হিসেবে যেই কার্বনদণ্ড ব্যবহৃত হবে সরকারের অনুমতি পেলে তা পাওয়া যাবে দেশের যেকোনও স্থানের গাড়ির খুচরা যন্ত্রাংশ বিক্রির (মটর পার্টস) দোকানে। ২০০ কেজি ওজনের এ গাড়ি পাকা ও কাঁচা রাস্তায় অন্য গাড়ির মতোই চলবে স্বাভাবিক। শব্দবিহীন এবং পরিবেশবান্ধব এই গাড়িটি  বাণিজ্যিক উৎপাদনের জন্য ২০০৭ সালে শিল্প মন্ত্রণালয়ে আবেদন করলেও কোনও জবাব মেলেনি। চলতি বছরের মাঝামাঝিতে তিনি আরেক দফা আবেদন করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গর্ভনরের কাছে। সেখান থেকেও কোনও সাড়া পাওয়া যায়নি।

প্রকৌশলী আমির হোসেন জানান, প্রায় দেড় বছর গবেষণা চালিয়ে তৈরি করা এই গাড়িটি ২০০৬ সালে বগুড়ায় আনুষ্ঠানিকভাবে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় প্রথম প্রদর্শন করা হয়। তখন গাড়িটি দেশি-বিদেশি দর্শকদের বেশ আকর্ষণ করে। এরপর ২০০৮ সালে ঢাকায় চীন মৈত্রী সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত পাঁচদিনের আন্তর্জাতিক প্রযুক্তি মেলায় আমির হোসেনের কাছে এ গাড়ি কেনার প্রস্তাব দেয় প্রায় ৪০০ ক্রেতা। কিন্তু সরকারের অনুমতি না থাকায় তাদের কাছেও গাড়ি বিক্রি করতে পারেননি আমির হোসেন।

আমির হোসেন জানান, গত আট বছরে সামাজিক গণমাধ্যমে এ গাড়ি কেনার জন্য প্রায় আট লক্ষাধিক ক্রেতা যোগাযোগ করেছে কিন্তু অনুমতি না থাকায় কোনও প্রস্তাবই গ্রহণ করতে পারেননি তিনি। ভারতের টিভিএস, জার্মান, কোরিয়া, তাইওয়ান ও ইন্দোনেশিয়ার বিভিন্ন কোম্পানি যৌথভাবে জ্বালানিবিহীন এ গাড়ি তৈরি এবং বাজারজাত করতে প্রস্তাব করেছে কিন্তু দেশের কথা বিবেচনা করে সে প্রস্তাবেও সাড়া দেননি তিনি। আমির হোসেন জানান, গাড়িটির সব যন্ত্রাংশ দেশেই তৈরি করা সম্ভব। মানভেদে সর্বোচ্চ চার লাখ টাকা দামের এ গাড়িটির আয়ুষ্কাল প্রায় এক যুগ।