Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

সন্ধ্যা ৬:৩৩ ঢাকা, বুধবার  ২১শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

বাংলাদেশের উন্নয়নে পাশে থাকবে চীন : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দৃঢ় আশা প্রকাশ করে বলেছেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন প্রয়াসে চীন এদেশের পাশে থাকবে এবং চীন ও অন্যান্য বন্ধুপ্রতীম দেশের সহায়তায় বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয় ও ২০৪১’র মধ্যে এক উন্নত দেশে পরিণত হওয়ার কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছতে সক্ষম হবে।
বাংলাদেশের উন্নয়নে অব্যাহত সমর্থনের জন্য চীন সরকার ও চীনের বন্ধুপ্রতীম জনগণের প্রতি ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ চীনের প্রেসিডেন্ট জি জিংপিং-এর সফরের জন্য সাগ্রহে অপেক্ষা করছে।
চীনের কমিউনিস্ট পার্টির আন্তর্জাতিক দপ্তর বিষয়ক ভাইস মিনিস্টার চেং ফেংজিয়াংযের নেতৃত্বে ৬ সদস্যের এক প্রতিনিধিদল আজ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর তেজগাঁও কার্যালয়ে সাক্ষাত করতে গেলে শেখ হাসিনা একথা বলেন।
pm26-11-1প্রধানমন্ত্রী কর্ণফুলি নদীর নিচ দিয়ে টার্নেল নির্মাণে সহায়তার জন্য চীনকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে চীনের ব্যাপক অবদান রয়েছে।
বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।
শেখ হাসিনা বিভিন্ন খাতের উন্নয়নে তাঁর সরকারের কর্মসূচি ও পরিকল্পনার উল্লেখ করে বলেন, বাংলাদেশ খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে। শিক্ষার সম্প্রসারণে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের বিনা মূল্যে পাঠ্যপুস্তক দিচ্ছে এবং পল্লীর জনগণের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্য সেবার ব্যবস্থা করা হয়েছে।
বাংলাদেশ এখন জ্বালানী ও অবকাঠামো খাতে গুরুত্ব দিয়েছে- একথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিপুল জনসংখ্যা অধ্যূষিত এই বাংলাদেশের এখন প্রধান কাজ হচ্ছে দারিদ্র্য বিমোচন।
শেখ হাসিনা জঙ্গীবাদের ক্ষেত্রে তাঁর সরকারের জিরো টলারেন্সের কথাও উল্লেখ করেন।
চীনের কমিউনিস্ট পার্টি ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মধ্যে সহযোগিতা আরো জোরদারের ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর দলের এক প্রতিনিধি দলের সাম্প্রতিক সফর খুবই সফল হয়েছে। আগামীতে এ ধরনের আরো সফর অনুষ্ঠিত হবে। এ ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধিদলের সফর দু’দলের মধ্যে সম্পর্ক ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ে সহযোগিতা বৃদ্ধি করেছে।
শেখ হাসিনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১৯৫২ ও ১৯৫৭ সালে চীন সফরের কথা স্মরণ করে বলেন, চীনের উন্নয়ন সম্পর্কে বঙ্গবন্ধুর দূরদৃষ্টি সঠিক ছিল। এ অভিজ্ঞতার কথা বঙ্গবন্ধু তাঁর আত্মজীবনীতে লিখেছেন এবং শিগগিরই তা প্রকাশিত হবে।
প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রীয় ও পার্টি পর্যায়ে চীনের সঙ্গে বিদ্যমান সম্পর্কে সন্তোষ প্রকাশ করে আশা প্রকাশ করেন যে আগামী দিনে এ সম্পর্ক আরো জোরদার হবে।
ভাইস মিনিস্টার চেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর প্রতি চীনের কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক ও দেশটির প্রেসিডেন্ট জি জিংপিং ও প্রধানমন্ত্রী লি কিয়েংয়ের উঞ্চ শুভেচ্ছা পৌঁছে দেন।
চীনের সরকার শেখ হাসিনার ১৯৯৩ সালে বিরোধী দলীয় নেতা হিসেবে এবং ১৯৯৬ সালে সরকার গঠনের পর তাঁর প্রথম বিদেশ সফরে চীন যাওয়ায় খুবই আনন্দিত।
সফররত মিনিস্টার শেখ হাসিনার নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, তাঁর দক্ষ নেতৃত্বে বাংলাদেশের জনগণের জীবনযাত্রার মান বাড়ছে ও অর্থনীতি এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি চীনের আই টি খাতের উন্নয়ন সম্পর্কে জানতে প্রধানমন্ত্রীর আই সি টি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়কে চীন সফরের আমন্ত্রণ জানান।
প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভী, আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ফারুক খান ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সুরাইয়া বেগম অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।