Press "Enter" to skip to content

বাঁশখালীর পুলিশি হত্যাকান্ডের বিচার বিভাগীয় তদন্ত ও শাস্তি চান খালেদা জিয়া

বিএনপি চেয়ারপার্সন ও ২০ দলীয় জোট প্রধান, বেগম খালেদা জিয়া চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে পুলিশের হামলায় ৫ জন নিহত ও বহু মানুষ আহত হওয়ার ঘটনায় নিহতদের প্রতি শোক প্রকাশ করে হত্যাকান্ডের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন ও অপরাধীদের শাস্তির দাবি করেছেন।

বিএনপি চেয়ারপার্সনের প্রেস সচিব মারুফ কামাল খানের স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমের কাছে রাতে প্রেরিত এক বিবৃতিতে তিনি এ দাবি জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে বিএনপি চেয়ারপার্সন বলেন, “চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে বেসরকারি উদ্যোগে একটি কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের প্রতিবাদে বিক্ষোভরত জনসাধারণের উপর সোমবার পুলিশের হামলায় দুই সহোদর ও এক নারীসহ অন্তত: ৫ (পাঁচ) জন নিহত এবং বহু মানুষ আহত হবার ঘটনায় আমি গভীরভাবে শোকাহত, উদ্বিগ্ন, মর্মাহত ও ক্ষুব্ধ। আমি এই হত্যাকান্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

খালেদা জিয়া বলেন, “কথায় কথায় প্রতিবাদী মানুষের উপর গুলি চালিয়ে হত্যা ও আহত করা এখন এক স্বাভাবিক নিয়মে পরিণত হয়েছে।

২০ দলীয় জোট প্রধান বলেন,“বাঁশখালীতে দুটি বিরোধীয় পক্ষের মধ্যে শান্তিরক্ষাই যেখানে পুলিশের কর্তব্য ছিলো সেখানে পুলিশ এধরণের হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে। অনৈতিক সরকারের গদিরক্ষার কাজে পুলিশকে অন্যায়ভাবে ব্যবহার করার কারণে তারা এখন বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। আইনসম্মতভাবে ও জবাবদিহিতার মধ্যে থেকে কর্তব্য পালনের বদলে তারা অনেক ক্ষেত্রেই কথায় কথায় গুলি চালিয়ে নাগরিকদের হত্যা ও আহত করছে। বাঁশখালীর ঘটনা তার সর্বশেষ নজির।

বেগম জিয়া বলেন,“আমি মনে করি হত্যা-নির্যাতন চালিয়ে গদিরক্ষা যেমন সম্ভব নয়, তেমনই জনগণের প্রতিবাদ-বিক্ষোভও অনির্দিষ্টকাল দমন করে রাখা যাবে না।

বিএনপি নেত্রী বলেন, “আমি বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করে পুরো ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

বিএনপি চেয়ারপার্সন বলেন,“আমি নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। শোকার্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি। তাদেরকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণের দাবি করছি। আহতদের আশু আরোগ্য কামনা করছি এবং তাদের সুচিকিৎসার বন্দোবস্ত করার দাবি জানাচ্ছি।”
সংবাদ বিজ্ঞপ্তির।

Mission News Theme by Compete Themes.