বর্ধমান বিস্ফোরণ: জেএমবির আসাম শাখার প্রধান গ্রেপ্তার

পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমানে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ভারতের জাতীয় তদন্ত সংস্থার (এনআইএ) গোয়েন্দারা আরো এক জঙ্গিকে গ্রেপ্তার করেছে। তার নাম শাহনূর আলম। তিনি নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) আসাম শাখার প্রধান। পেশায় তিনি হোমিওপ্যাথিক চিকিৎ‌সক।

শুক্রবার রাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। ২ অক্টোবর চালানো ওই হামলায় যে গুরুত্বপূর্ণ ৪ জঙ্গির জড়িত থাকার কথা বলা হচ্ছে তার অন্যতম হচ্ছেন এই শাহনূর। তাকে সন্ত্রাসী গ্রুপ জেএমবির ‘অর্থের যোগানদাতা’ বলে মনে করা হয়ে থাকে।

খবরে বলা হয়েছে, এনআইএ শাহনূরকে আসামের নালবাড়ি জেলা থেকে গ্রেপ্তার করে। আসাম পুলিশ ও সেন্ট্রাল সিকিউরিটি অ্যাজেন্সির সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে এনআইএ গোয়েন্দারা সম্ভাব্য যেসব জায়গায় শাহনূর লুকিয়ে থাকতে পারে সেসব জায়গায় অভিযান চালায়। একপর্যায়ে শুক্রবার সন্ধ্যায় তাকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হন গোয়েন্দারা।

ওই ঘটনায় অন্য তিন পরিকল্পনাকারী হলেন- সাজিদ ওরফে শেখ রহমতুল্লাহ, মিয়ানমারের নাগরিক খালিদ মোহাম্মেদ ও আবদুল হাকিম। এনআইএ তাদের গ্রেপ্তার করেছে। তারা এখন আদালতের হেফাজতে রয়েছেন।

হেফাজতে থাকা ব্যক্তিদের কাছ থেকে শাহনূর আলমের নাম জানা যায়। অবশ্য এনআইএ গোয়েন্দারা গত মাসের শাহনূর আলমের স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করে। কিন্তু বিস্ফোরণের পর থেকেই শাহনূর ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিল। এনআইএ গোয়েন্দারা তার ব্যাপারে তথ্য দেয়ার জন্য ৫ লাখ রুপি পুরস্কার ঘোষণা করেছিল।

বর্ধমান বিস্ফোরণের ঘটনায় ইতোমধ্যে ৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে পশ্চিমবঙ্গে।