ব্রেকিং নিউজ

রাত ৯:২৬ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ১৯শে এপ্রিল ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

বর্তমানে শিক্ষার মান না বাড়িয়ে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিমাণ বাড়ানো হচ্ছে-বদিউল আলম

শীর্ষ মিডিয়া ১৪ অক্টোবর ঃ   মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স রুমে ‘বাংলাদেশের শিক্ষার বর্তমান হালচাল’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন)’র সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারঅধিক হারে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করে দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে আলু-পটলের ব্যবসায় পরিণত করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেন, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলো শিক্ষা ব্যবস্থাকে আলু-পটলের ব্যবসায় পরিণত করেছে। বর্তমানে শিক্ষার মান না বাড়িয়ে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিমাণ বাড়ানো হচ্ছে। এটা উদ্বেগজনক পরিস্থিতি।
বৈঠকে উপস্থাপিত মূল বক্তব্যে বলা হয়, বাংলাদেশ বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় আইন ১৯৯২ বাস্তবায়নের লক্ষে প্রথমে কয়েকটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার অনুমোদন দেওয়া হয়। উদ্দেশ্য ছিল অতিরিক্ত ছাত্রছাত্রীদের জন্য মানসম্পন্ন উচ্চশিক্ষা নিশ্চিতকরণ। কিন্তু বর্তমানে গণহারে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার অনুমোদন দেওয়া হয়। যেগুলোর ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় নির্মাণ কাঠামো, আর্থিক সংগতি ও সবল শিক্ষানুষঙ্গ বিবেচনায় আনা হয়নি।
সরকার এ পর্যন্ত ৭৯ টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় অনুমোদন দিয়েছে উল্লেখ করে বক্তারা বলেন, যদিও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে অলাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসেবে অনুমোদন দেওয়া হয়। কিন্তু এগুলো বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছে।
বৈঠকে বক্তারা বলেন, অনিয়ম, দুর্নীতি রোধকল্পে ‘বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০১০’ কার্যকরী করার ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। সার্টিফিকেট বাণিজ্যকে বরং শিক্ষা মন্ত্রণালয় নানাভাবে সহযোগিতা করছে।
মূল বক্তব্যে আরো বলা হয়, শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বচ্ছতা পাওয়া যায়নি। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আইন ২০১০ অনুযায়ী শিক্ষক ও কর্মকর্তা নিয়োগে আইন থাকলেও তা মানছেন না অনেকেই। দেশের ৭৯ টি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক শিক্ষার্থীর অনুপাত হচ্ছে ১:২৬। এ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ভিসি, প্রোভিসি ও ট্রেজারার আছে যথাক্রমে ৫২, ১৮ ও ৩০ টিতে।
গোলটেবিল বৈঠকে বক্তব্য রাখেন সুজনের সভাপতি এম হাফিজ উদ্দিন খান, বিচারপতি কাজী এবাদুল হক, বুয়েটের সাবেক উপাচার্য ড. আবদুল মতিন চৌধুরি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আসিফ নজরুল প্রমুখ।