ব্রেকিং নিউজ

ভোর ৫:৩৮ ঢাকা, শনিবার  ১৭ই নভেম্বর ২০১৮ ইং

মাহবুব-উল-আলম হানিফ
আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ এমপি, ফাইল ফটো

‘বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে জড়িতদের বিচারে কমিশন গঠন চান হানিফ’

আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের হত্যার নেপথ্যে জিয়াউর রহমানসহ জড়িতদের বিচারের জন্য আলাদা কমিশনের মাধ্যমে তদন্তের দাবি জানিয়েছেন।

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে টিএসসি অডিটোরিয়ামে (১৫ আগস্ট ট্র্যাজেডি এবং আজকের জঙ্গিবাদ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ দাবি জানান। স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ (স্বাশিপ) এই আলোচনা সভার আয়োজন করে।

স্বাশিপের সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান আলম সাজুর সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর শেখ মোঃ ওয়াহিদুজ্জামান, বাংলাদেশ ইসলামিক ফাউ-েশনের মহাপরিচালক সামীম মোঃ আফজাল, প্রধানমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব সাইফুজ্জামান শিখর, ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার ঘাতকদের বিচার শেষে অনেকের দন্ড কার্যকর হয়েছে। পলাতক খুনিদের ফিরিয়ে এনে দন্ড কার্যকরের চেষ্টা চলছে। তবে বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যের পরিকল্পনাকারী জিয়াউর রহমানের মুখোশ উন্মোচন হোক। আমি দাবি জানাতে চাই, জিয়ার মরণোত্তর বিচার হোক।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে জড়িতদের বিচারে আলাদা কমিশনের মাধ্যমে তদন্ত্র করতে হবে। এছাড়া খুনিদের মূল উন্মোচন সম্ভব নয়। ৭৫’র পর্দার অন্তরালের খুনিদের চিহ্নিত করতে না পারলে দেশে জঙ্গিবাদী কর্মকান্ড থামবে না।

আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, জিয়াউর রহমান কখনোই প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না। তিনি মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানীদের দোসর হয়ে কাজ করেছেন। জিয়াউর রহমান একজন নামধারী মুক্তিযোদ্ধা। জিয়া মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি যুদ্ধজাহাজের অস্ত্র খালাসের দায়িত্বে ছিলেন। তার হঠাৎ মুক্তিযুদ্ধে যাওয়ায় সবাই হতবাক হয়েছে।