ব্রেকিং নিউজ

সন্ধ্যা ৬:১৮ ঢাকা, সোমবার  ২৪শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

ফাইল ফটো

‘বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে জড়িতদের বের করতে দরকার কমিশন’

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যার নেপথ্যে ষড়যন্ত্রকারীদের বের করতে একটা কমিশন করা উচিত।

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু হত্যায় নেপথ্যে জড়িতদের বের করতে কমিশন করার পক্ষে মত দিয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, যারা যারা এই হত্যাকান্ডের নেপথ্যে ছিলেন ইতিহাসের কারণেই কিন্তু সেটা খোঁজে বের করা দরকার। আমরা চিন্তা-ভাবনা করছি তাদের খোঁজে বের করতে একটি কমিশন গঠন করার কথা’ ।

মন্ত্রী বলেন, একুশে আগষ্ট গ্রেনেড হামলা ঘটনার মামলার দ্রুতই রায় হবে। এই হত্যাকান্ডের মামলার বিচার কাজ শেষ পর্যায়ে আছে। আমার বিশ্বাস যে আগামী কিছুদিনের মধ্যে এই মামলার রায় হবে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ৪১তম শাহাদাৎবার্ষিকী জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আজ শনিবার সুপ্রিমকোর্টে এটর্নি জেনারেল কার্যালয়ের উদ্যোগে আয়োজিত স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষন তিনি এ কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধু হত্যায় জড়িতদের মধ্যে আপিল বিভাগের চূড়ান্ত রায়ে ১২ জনের মৃত্যুদন্ড বহাল থাকে। এর মধ্যে পাঁচজনের মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়েছে। বাকি সাতজনের মধ্যে পলাতক অবস্থায় একজন মারা গেছেন। আর ছয়জন এখনো পলাতক। এই রায়ের কথা উল্লেখ করে আইন মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের মাধ্যমে যারা সরাসরি এর সাথে জড়িত ছিলেন, তাদেরকে সাজা দিতে পেরেছি। খুনি মুশতাক যদি বেচে থাকত, তার যদি বিচার করা যেতো, মাহবুবুল আলম চাষীর যদি বিচার করা যেত, এখন পলাতক রশীদকে যদি বের করা যায় তাহলে এর নেপথ্যে আরো কারা আছে সেটা বের করা যাবে। যারা হত্যা মামলার সাথে জড়িত নয়, কিন্তু বাইরের ষড়যন্ত্রে সঙ্গে জড়িত, সেক্ষেত্রে আমরা হয়তো অনেক তথ্য পেতাম। হত্যার নেপথ্যে ষড়যন্ত্রকারীদের বের করতে একটা কমিশন করা উচিত।

তিনি বলেন, একুশে আগস্ট হামলা মামলায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ১৯ আসামি পলাতক রয়েছেন। সেসব পলাতক আসামীদের খোঁজে বের করতে কি পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে জানতে চাইলে আনিসুল হক বলেন, ‘আমি এ ব্যাপারে শুধু বলব আমরা তাদেরকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি।’

অনুষ্ঠানে এটর্নি জেনারেল মাহববে আলম, এটর্নি জেনারেল কার্যালয়ের কর্মকর্তাগন উপস্থিত ছিলেন।