ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৮:৩৮ ঢাকা, সোমবার  ২৪শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

জেলা পরিষদ নির্বাচন
বিদ্রোহী প্রার্থীদের সমর্থকরা নিজেদের মধ্যে সহিংসতায় জড়িয়ে পড়েন।

ফাঁকা মাঠে আ’লীগের বিশাল বিজয়, ঘটেছে সহিংসতাও

বিক্ষিপ্ত সংঘাত-সহিংসতা, কেন্দ্রের বাইরে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া, ভোট কেন্দ্রে জোর করে প্রবেশের চেষ্টা এবং আচরণবিধি লংঘনের ঘটনার মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে জেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ।

বুধবার ৫৯ জেলায় সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত টানা ৫ ঘণ্টা ভোটগ্রহণ চলে। তবে দুটি জেলায় চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন স্থগিত হয়ে যায়।

বিএনপি ও জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল এ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেনি। এরপরও ফাঁকা মাঠে জয় পেতে ক্ষমতাসীন দল সমর্থিত ও বিদ্রোহী প্রার্থীদের সমর্থকরা নিজেদের মধ্যে সহিংসতায় জড়িয়ে পড়েন।

তবে অধিকাংশ জেলায় ভোট গ্রহণ শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জেলা পরিষদ নির্বাচনে বেসরকারি ফলাফলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীদের জয়জয়কার। বুধবার ৩৮ জেলায় অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ২৪ জন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী চেয়ারম্যান হিসেবে বিজয়ী হয়েছেন। বাকি জেলাগুলোতে ১০ জন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী এবং ৪ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী চেয়ারম্যান হয়েছেন।

এর আগে ২১ জেলায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা একক প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হন। সব মিলিয়ে ৪৫ জেলায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা চেয়ারম্যান পদে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হলেন।

নির্বাচন কমিশন ৬১ জেলা পরিষদের তফসিল ঘোষণা করলেও ভোলা ও ফেনী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত সদস্য পদে সবাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ায় ওই দুই জেলায় ভোট গ্রহণ হয়নি। যুগান্তর।