শীর্ষ মিডিয়া

ব্রেকিং নিউজ

ভোর ৫:২৫ ঢাকা, শনিবার  ১৫ই ডিসেম্বর ২০১৮ ইং

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের
সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, ফাইল ফটো

ফখরুলের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করলেন কাদের

নয়াপল্টনে বিএনপি অফিসের সামনে বুধবার ছাত্রলীগ হামলা করেছে বলে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল আলমগীর যে অভিযোগ করেছেন তা প্রত্যাখ্যান করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘আমি ভাবতে পারিনি মির্জা ফখরুল এতটা মিথ্যা কথা বলবেন। তিনি গতকাল যে মন্তব্য করেছেন, এটি কে বিশ্বাস করবে? ছাত্রলীগ নাকি হামলা করেছে- এটি কেউ বিশ্বাস করবে? আমি ভাবতেও পারিনি মির্জা ফখরুলের মুখে এমন মিথ্যা কথা শুনতে হবে।’

আজ বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে সমসাময়িক বিষয়ে আলাপকালে এসব কথা বলেন তিনি।

বুধবার বিএনপি অফিসের সামনে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি-নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা উল্লেখ করে কাদের বলেন, কাল (বুধবার) আন্দোলনের নামে সহিংসতার আশ্রয় নিয়েছে বিএনপি। তারা পরিকল্পিতভাবে পুলিশের ওপর হামলা চালিয়েছে। বিএনপিকর্মীরা সেখানে দিয়াশলাই জ্বালিয়ে গাড়িতে আগুন দিয়েছে। তারা পুলিশের গাড়িতে উঠে শেখ হাসিনার পতন চেয়েছে। এটি কেন? তারা এলে নির্বাচনে যেতে চান না, তারা নির্বাচন বানচাল করতে চান।

ওবায়দুল কাদের বলেন, নয়াপল্টনের ঘটনা পূর্বপরিকল্পিত। নির্বাচনী সুবাতাস কারা নষ্ট করছে? নির্বাচন নিয়ে ব্লু প্রিন্টের টেস্ট কেস আমরা কাল (বুধবার) দেখেছি। নির্বাচন বিনষ্টের যে অশুভ তৎপরতা তা কাল প্রমাণ করেছে বিএনপি। তারা যদি নির্বাচন চায়, তা হলে তাদের এ অশুভ তৎপরতা বন্ধ করতে হবে।

মন্ত্রিসভার আকার কমবে কিনা, এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সেটি দু-একদিনের মধ্যে জানা যাবে। এ ছাড়া আওয়ামী লীগ দুই-তিন দিনের মধ্যে জোটগুলোর সঙ্গে বসার পর দলের মনোনয়ন চূড়ান্ত করবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির এ দুর্দিনে স্থায়ী কমিটির নেতাদের সঙ্গে নিয়ে দল সামলাচ্ছেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সাত দফা দাবি নিয়ে সরকারকে আলোচনার টেবিলে বসাতেও তাদের কামাল হোসেনের সঙ্গে জোট বাঁধতে হয়েছে।

ঐক্যফ্রন্ট আনুষ্ঠানিকভাবে ড. কামাল হোসেনকে তাদের ‘প্রধান নেতা’ হিসেবে বর্ণনা করে। ঐক্যফ্রন্টের বিভিন্ন জনসভায় তাকে দেখা গেছে ‘প্রধান অতিথি’ হিসেবে, আর মির্জা ফখরুল ছিলেন ‘প্রধান বক্তা’।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের পর আওয়ামী লীগ নেতাদের সমালোচনার মুখে গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছিলেন, নির্বাচনে প্রার্থী হওয়া কিংবা রাষ্ট্রীয় কোনো পদ পাওয়ার ইচ্ছা তার নেই। আর তারেক রহমান সাজা মাথায় নিয়ে দেশে ফিরবেন- এমন কোনো ইঙ্গিতও এখনও পাওয়া যায়নি।

ঐক্যফ্রন্টের দলগুলো একসঙ্গে নির্বাচনে গেলে আসন ভাগাভাগি কীভাবে হবে- সে বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেননি জোটের নেতারা। সে ক্ষেত্রে তারা সরকার গঠন করতে পারলে কে হবেন সেই সরকারের প্রধান- সে প্রশ্নই ওবায়দুল কাদের সামনে এনেছেন।

তিনি বলেন, ‘তারা যে একটা ইলেকশন করবে… যে কোনো দেশেই… দলের একজন পিএম ফেইস থাকে। আমি জানতে চাই হু ইজ দেয়ার পিএম ফেইস।’