Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ৪:৩৭ ঢাকা, সোমবার  ১৯শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

‘প্রেম’ এখন জমজমাট ‘লাভজনক ব্যবসা’ টার্গেট বিবাহিত নারী

আহমেদ আরিফ:

অন্তরালে ১-

ঢাকার অভিজাত একটি এলাকার বাসিন্দা ১ সন্তানের জননী ২৮ বছর বয়সী ফারাজানা শাম্মী। স্বামী ব্যস্ত ব্যবসা নিয়ে। ফারজানার সময় কাটে সন্তানের পড়ালেখা নিয়ে, বান্ধবীদের সাথে আড্ডা দিয়ে, শপিং করে। মনের মধ্যে চাপা কষ্ট স্বামীর কাছ থেকে কাঙ্ক্ষিত সময় না পাওয়ার। একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে ফারজানার সাথে পরিচয় হয় সুদর্শন, স্মার্ট নাঈমের। নাঈম নিজের পরিচয় দেয় নামকরা একটি প্রতিষ্ঠানের মার্কেটিং বিভাগে কর্মরত হিসেবে। প্রথম পরিচয়েই সুদর্শন নাঈমের চমৎকার কথা বলার স্টাইলে মুগ্ধ হয়ে যায় ফারজানা। বিনিময় হয় মোবাইল নম্বর। ৫ মিনিট, ১০ মিনিটের ফোনালাপ একটা সময় ১ ঘণ্টা, ২ ঘণ্টায় গড়ায়।

প্রথম পরিচয়ে মুগ্ধ ফারজানা কিছুদিনের মধ্যেই আবিষ্কার করে একাকীত্বের সবটুকু জায়গা দখল করে নিয়েছে নাঈম। শিকার পুরোপুরি কাবু হবার পর ফারজানার দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে নাঈম একেক সময় একেক সমস্যার কথা বলে মন খারাপের ভান করে সাময়িক ‘আর্থিক ক্রাইসিস’ সৃষ্টি করে। ধার না চাইতেই ভালবাসার মানুষটির আর্থিক সমস্যায় এগিয়ে আসে ফারজানা। টানা ৬ মাস ধরে কোন না কোনভাবে প্রতিমাসেই ফারজানার কাছ থেকে টাকা নেওয়া নাঈমের বক্তব্য ছিল ‘এই মাসে বেতন পেলে সবার আগে তোমার টাকাটা দিয়ে দেব’।

বান্ধবীদের সাথে একদিন শপিংয়ে গিয়ে ফারজানা দেখতে পায় অন্য একটি মেয়ের সাথে বেশ অন্তরঙ্গভাবে হাত ধরে শপিং সেন্টারে ঘুরে বেড়াচ্ছে নাঈম। ফারজানা আড়ালে গিয়ে নাঈমকে ফোন দিয়ে কোথায় আছে জানতে চাইতেই নাঈম জানায় ‘অফিসে’। ফারজানার বুঝতে বাকী থাকেনা, এতদিন যে ভালবাসার আবেশে হারিয়ে গিয়েছিল তা নাঈমের অভিনয় ছাড়া কিছুই না। পরে খোঁজ নিয়ে জানতে পারে, কোন চাকরিই করেনা নাঈম। নিজের সুদর্শন চেহারা, আকর্ষণীয় বাচনভঙ্গী দিয়ে উচ্চবিত্তের বিবাহিত মহিলাদের সাথে প্রেমের অভিনয় করে টাকা নেওয়াই নাঈমের মুল চাকরি!

অন্তরালে ২

সহজ-সরল, চুপচাপ স্বভাবের ভার্সিটি পড়ুয়া নাসরিনের সাথে ফেসবুকে পরিচয় হয় জাহিদের। ফেসবুক চ্যাট, মোবাইল ফোনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা নাসরিনকে মাতিয়ে রাখে জাহিদ। চুপচাপ স্বভাবের কারণে বন্ধু না থাকা নাসরিনের চাপা কষ্ট দূর করে দেয় জাহিদ। নাসরিনের পুরো পৃথিবী দখল করে নেওয়া জাহিদ কখনো টিউশন ফি, কখনো সেমিস্টার ফি, কখনো বাসা-ভাড়া দেওয়ার কথা বলে ৩ হাজার ৫ হাজার যখন যা পেরেছে তা নিয়েছে। একদিন সারপ্রাইজ দিতে জাহিদের মেসের ঠিকানায় গিয়ে দেখে ওখানে জাহিদ নামের কেউ থাকেনা। এবং ওই বিল্ডিংয়ের কোন ফ্ল্যাটেই ব্যাচেলর থাকেনা।

সারপ্রাইজ দিতে গিয়ে সারপ্রাইজ পাওয়া নাসরিন বাসার ঠিকানা মিথ্যা বলার ব্যাপারটি জাহিদের কাছে গিয়ে জানতে চাইতেই বাসা পাল্টানোর অজুহাত দেয়। নতুন বাসা কোথায় এমন প্রশ্নের উওর না দিয়ে লাইন কেটে দেয় জাহিদ। জাহিদ বন্ধ করে দেয় সিম কার্ডটি, ডিএক্টিভ করে দেয় ফেসবুক আইডিও। জাহিদকে পেয়ে নতুন একটি পৃথিবী পাওয়া নাসরিন এখন ‘মানুষগুলো এমন হয় কেন?’ প্রশ্নের উওর খুঁজে বেড়ায়।

বাড়ছে পথভ্রষ্ট যুবকের সংখ্যা

ফেসবুক, মোবাইল ফোন, হোয়াটসআপ, স্কাইপে, বাইভারের এই যুগে যোগাযোগের অকল্পনীয় সুযোগ কাজে লাগিয়ে যে কারো সাথে যোগাযোগ করা যায় সেকেন্ডে। যোগাযোগের এই সুযোগটাকে কাজে লাগাচ্ছে পথভ্রষ্ট কিছু তরুণ, যুবক। সময়ের সাথে ধীরে ধীরে নৈতিক অবক্ষয়ে ‘পথভ্রষ্ট’ হওয়া যুবকদের সংখ্যা আশংকাজনক হারে বাড়ছে। প্রিন্ট, অনলাইন মিডিয়ায় প্রতিদিনই নিউজ হচ্ছে- প্রেমের অভিনয় করে প্রেমিকাকে ধর্ষণ/বন্ধুদের নিয়ে ধর্ষণ, অপহরণ ও ব্ল্যাকমেইলের। মাঝে মাঝে সুদর্শন, স্মার্ট ছেলেদের প্রেমের ফাঁদে পড়ে প্রতারণার শিকার হবার নিউজও হচ্ছে। বেশ কয়েকমাস আগে ফেসবুকে সাবেক এক মহিলা এমপির ভার্সিটি পড়ুয়া কন্যার প্রেমে প্রতারিত হবার ঘটনা বেশ আলোড়ন তুলেছিল অনলাইন ব্যবহারকারীদের মাঝে। এমন অনেক ঘটনা ফেসবুকের এ ওয়াল সে ওয়াল ঘুরে বেড়ায়।

একালের সুদর্শন, স্মার্ট ছেলেদের প্রেমের ফাঁদ

বিভিন্ন সূত্রে অনুসন্ধানে জানা গেছে- দেখতে সুদর্শন, স্মার্ট ছেলেরা নিজেদের বাহ্যিক সৌন্দর্যকে কাজে লাগিয়ে আর্থিকভাবে বেশ সচ্ছল কলেজ, ভার্সিটি পড়ুয়া মেয়ে এবং বিবাহিত নারীদের টার্গেট করে চালিয়ে যাচ্ছে জমজমাট প্রেমের ব্যবসা। তবে এসব ‘প্রেমের ব্যবসায়ী’দের বেশীর ভাগেরই টার্গেট বিবাহিত সেইসব মহিলা, যারা আর্থিকভাবে বেশ সচ্ছল এবং সংসার জীবনে একাকীত্বে ভোগেন। প্রথম কারণ, সংসার জীবনে মানসিক অশান্তি, একাকীত্বে ভোগা এসব নারীদের একাকীত্বের সুযোগ নিয়ে ইমোশনালি প্রেমের ফাঁদে ফেলে টাকা পয়সা হাতিয়ে নেওয়া যায়। দ্বিতীয় কারণ, এদের কাছে ধরা পড়লেও ‘রিস্ক নাই’। কারণ, বিবাহিত যেসব নারীকে এরা ফাঁদে ফেলে সেসব নারী নিজেরাই স্বামীর কাছে ধরা পড়ার আতংকে থাকে। সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হওয়ার ভয়ের পাশাপাশি সংসার ভাঙার ভয়ে ভুক্তভোগী নারীরা এক সময় নীরবেই ঘটনা চাপা দিয়ে দেন। এই কারণে এসব ঘটনার ৯৫ ভাগই থেকে যায় অন্তরালে।

সুদর্শন, স্মার্ট প্রতারক প্রেমিকরা বিবাহিত নারীদের বিভিন্ন পার্টি, গায়ে হলুদ, বিয়ের অনুষ্ঠানে এক সাথে কয়েকজনকে ‘শিকার’ হিসেবে বেছে নেয়। এরা এতটাই ধুরন্ধর যে টার্গেটকে ফাঁদে ফেলতে না পারার ব্যর্থতা নেই বললেই চলে। কলেজ-ভার্সিটি পড়ুয়া সেসব তরুণীকে মোবাইলে, ফেসবুকে টার্গেট করে প্রেমের ফাঁদ পাতা হয় এসব ক্ষেত্রে কথিত প্রেমিকের মুল উদ্দেশ্য থাকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে শারীরিক সম্পর্ক করে ‘বিশেষ মুহূর্তের’ দৃশ্য ধারণ করে ব্ল্যাকমেইল করা। ফ্যামিলি বুঝে এসব ভণ্ড প্রেমিকরা ২০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত নির্ধারণ করে।

বিবাহিত নারীরা সম্পর্কে বিশ্বস্ত থাকুন..স্বামীরা…

এসব প্রতারক প্রেমিকদের হাত থেকে রক্ষা পেতে বিবাহিত নারীদের সম্পর্কের প্রতি বিশ্বস্ত থাকার উপর জোর দিয়েছেন একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত জোবায়দা শিলা। তার মতে, মানুষ যদি সম্পর্কে বিশ্বস্ত না থাকে তাহলে মোবাইল ইন্টারনেটের এই যুগে আইন করে এসব অপরাধ কোনভাবেই ঠেকানো যাবেনা।

একজন মনোরোগ বিশেষজ্ঞের মতে, শুধু বিবাহিত নারীদের সম্পর্কের প্রতি বিশ্বস্ত থাকলেই চলবে না। পাশাপাশি স্বামীকেও স্ত্রীর প্রতি দায়িত্বশীল হতে হবে। কারণ, এসব অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়া বেশীর ভাগ নারীই স্বামীর কাছ থেকে কাঙ্ক্ষিত সময় না পেয়ে অবসাদে ভুগেন। প্রতিটি বিবাহিত নারীই চায় স্বামী তাকে সময় দিক, তার ভাললাগা-মন্দলাগা কেয়ার করুক। কিন্তু, অপ্রিয় হলেও সত্য যে স্ত্রীকে সময় না দেওয়া, ভাললাগা-মন্দ লাগার প্রতি কেয়ার না করা স্বামীদের সংখ্যা আশংকাজনক হারে বাড়ছে। কোনদিন বাইরে থেকে আসার সময় একটি ফুল নিয়ে আসা, কোনদিন স্ত্রীর পছন্দের খাবার নিয়ে এসে চমকে দেওয়া এমন ছোট ছোট ব্যাপারগুলো সম্পর্কের ভিতটা অনেক মজবুত করে বলে মনে করেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞগণ।

মেয়েরা নিরাপদ থাকুন

স্কুল-কলেজ, ভার্সিটি পড়ুয়া মেয়েদের মোবাইল ফোন, ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগের অনলাইন মাধ্যমগুলো ব্যবহারে সতর্ক হবার বিকল্প কিছু নেই। অপরিচিত নাম্বার থেকে ‘রং নম্বর’ ফাঁদে কোনভাবেই পা দেওয়া উচিত নয়। অনলাইনের সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলোতে ব্যাক্তিগত তথ্যগুলো কোনভাবেই পাবলিকলি শেয়ার করা উচিত নয়। অনলাইনে সক্রিয় প্রতারকরা এতই ধুরন্ধর যে এরা ব্যক্তিগত সামান্য তথ্য দিয়েও সহজেই বুঝে ফেলতে পারে ‘টার্গেট’ আর্থিকভাবে কতটা স্বচ্ছল। সূত্রঃ শীর্ষ নিউজ।

Like & share করে অন্যকে দেখার সুযোগ দিন