Press "Enter" to skip to content

প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ নাই

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, এসএসসি, দাখিল ও ভোকেশনাল পরীক্ষায় এখনও পর্যন্ত দেশের কোথাও থেকে প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

তিনি বলেন, ‘দেশের কোথাও থেকে প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ পাওয়া যায়নি এবং তা হবেও না। সংশ্লিষ্ট সকলের আন্তরিক সহযোগিতা ও গোয়েন্দা নজরদারির কারণে এটা সম্ভব হয়েছে। সারাদেশে আজ সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা শুরু হয়েছে।’

আজ রাজধানীর উত্তরার আশকোনা ‘বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়’ এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা বলেন।

ডা. দীপু মনি বলেন, ২০১৮ সালে দেশে কোনো প্রশ্নফাঁস হয়নি। আশা করছি এবছরও তা হবে না। প্রশ্নফাঁস নিয়ে যতো খবর ছিল তার বেশিরভাগ বা প্রায় ৮০ শতাংশ ছিল গুজব। তিনি অভিভাবকসহ সবাইকে গুজবে কান না দেয়ার আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, ‘একেবারে নকল ও প্রশ্নফাঁস মুক্ত পরিবেশে পরীক্ষা শেষ করতে নানা ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। এবার আমরা আরও কঠোর অবস্থানে রয়েছি। কেউ যদি প্রশ্নপত্র ফাঁস কিংবা তার গুজব ছড়ায় তাহলে তারা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে ধরা পড়বে। এমন ন্যাক্কারজনক কাজের সঙ্গে কেউ জড়িত থাকলে কেউ রেহাই পাবে না। তাদেরকে অবশ্যই আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, যেসব নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল এর সবকটি অনুসরণ করা হয়েছে। পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে প্রশ্নবাক্স খোলা হয়েছে। সারাদেশে অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল পেপারে মোড়ানো প্রশ্নপত্র পাঠানো হয়েছে।

প্রশ্নফাঁসের গুজবকারী কয়েকজনকে ইতোমধ্যে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা গ্রেফতার করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, যারা ফেসবুকসহ ইন্টারনেটের মাধ্যমে গুজব ছড়াচ্ছে তাদের ওপর নজরদারি বসানো হয়েছে। তাদেরকে দ্রুতগতিতে দেশের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী গ্রেফতার করবে। তিনি সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে পরীক্ষা সম্পন্ন করতে সকল অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের সহায়তা কামনা করেন।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা চাই নকলমুক্ত সুষ্ঠ পরিবেশে এবং সুন্দর ভাবে পরীক্ষা হোক।
শিক্ষক ও অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে ডা. দীপু মনি বলেন, পরীক্ষার্থীরা হলো আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। আশা করি শিক্ষক ও অভিভাবকরা প্রশ্নপত্র ফাঁস ও গুজবে যুক্ত হবেন না।

শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচচ শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সচিব সোহরাব হোসেন, কারিগরি শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সচিব মো. আলমগীরসহ মন্ত্রণালয়ের অন্যান্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন।

দেশের ১০টি শিক্ষাবোর্ডে আজ থেকে নকলমুক্ত পরিবেশের মধ্য দিয়ে ২০১৯ সালের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি),দাখিল ও ভোকেশনাল সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়েছে।

এ বছর ২৮ হাজার ৬৮২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মোট ২১ লাখ ৩৫ হাজার ৩৩৩ জন শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। এর মধ্যে ছাত্র ১০ লাখ ৭০ হাজার ৪৪১ জন, ছাত্রী ১০ লাখ ৬৪ হাজার ৮৯২ জন। মোট পরীক্ষাকেন্দ্র ৩ হাজার ৪৯৭টি।

শেয়ার অপশন:
Don`t copy text!