ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ২:৩২ ঢাকা, মঙ্গলবার  ১৪ই আগস্ট ২০১৮ ইং

প্রশ্নপত্র ফাঁস:Facebook বন্ধের ঘোষণায় শিক্ষামন্ত্রীর উপর চটলেন সুরঞ্জিত

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকার শিক্ষায় যুগান্তকারী অর্জন করেছে। কিন্তু এখানে একটি কালিমা হচ্ছে প্রশ্নপত্র ফাঁস। এটা আমাদেরকে স্বীকার করে নিতে হবে।শুক্রবার দুপুরে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে নৌকা সমর্থক আয়োজিত চলমান রাজনীতি শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

সুরঞ্জিত বলেন, ‘প্রশ্নপত্র ফাঁস খবর বের হলে আমাদের শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে একটা প্রেসনোট পাঠিয়ে দিয়ে বলে এটা গুজব, কোনো প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়নি। জাফর ইকবালের মতো লোক প্রশ্নপত্র ফাঁসে প্রমাণ দেখান। আর আমাদের শিক্ষামন্ত্রী বলেন- প্রয়োজন হলে ফেসবুক বন্ধ করে দেবো। তারপরে তিনি বলবেন  টুইটার, মোবাইল, বিদ্যুৎ বন্ধ করো দেবো। একদিন তিনি বলবেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ই বন্ধ করে দেবো। এটা কোনো সমাধন নয়।’  উল্লেখ্য, প্রশ্নপত্র ফাঁস  বন্ধে গতকাল শিক্ষামন্ত্রী পরীক্ষার সময় ফেসবুক বন্ধের নির্দেশ দেন।

তিনি বলেন, ‘প্রশ্নপত্র ফাঁস হলে প্রথমে সরকারকেই দোষ স্বীকার করে নিতে হবে। তারপর চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে হবে প্রশ্নপত্র ফাঁস বন্ধে। দোষীদের চিহ্নিত করে শাস্তি দিতে হবে। প্রয়োজনে দেশের জনগণকে সঙ্গে নিয়ে এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।’

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামকে উদ্দেশ্য করে সুরঞ্জিত বলেন, ‘আওয়ামী লীগের চাইতে বিএনপি যদি কম ভোট পায় তাহলে ফখরুল সাহেব রাজনীতি ছেড়ে দেবেন। আমি তাকে বলতে চাই কী রাজনীতি করছেন যে তা ছেড়ে দেবেন। কী ত্যাগ স্বীকার করেছেন? মুক্তিযুদ্ধ, শ্বৈরাচাবিরোধী কোন আন্দোলনে আপনার ভূমিকা ছিল? স্ট্যানবাজী দিয়ে রাজনীতি হয় না ফখরুল সাহেব। যা করতেন তা করেন।’

‘নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিলে আওয়ামী লীগের জামানত থাকবে না’ মির্জা ফখরুলের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগের এ প্রবীণ নেতা বলেন, ‘৫ জানুয়ারির নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ না করায় আপনাদের তো আমানত নেই। নির্বাচন না করে যে ভুল হয়েছে এটা তো খালেদা জিয়াই স্বীকার করেছেন। ভুলের খেসারত দিচ্ছেন আরো দেবেন।’

লন্ডনে হাউজ অব লর্ডসে গিয়ে জনগণের টাকা নষ্ট করা হচ্ছে দাবি করে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, ‘এখানে যাওয়া বন্ধ করা উচিৎ। কারণ আওয়ামী লীগ সরকার স্বীকৃত সরকার। ওখানে গিয়ে বিএনপিকে বোঝানোর কোনো দরকার নেই এ নির্বাচন অবৈধ। বিএনপির দরকার হলে তারা গিয়ে নালিশ করুক।’

আয়োজক সংগঠনের উপদেষ্টা হাজী সেলিমের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ফয়েজ উদ্দিন মিয়া, হুমায়ন কবির মিজি প্রমুখ।

Like & share করে অন্যকে দেখার সুযোগ দিন