ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৭:৪৬ ঢাকা, বুধবার  ২৪শে অক্টোবর ২০১৮ ইং

প্রধান বিচারপতির অভিসংশন চেয়েছেন বিচারপতি শামসুদ্দিন

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহার অভিসংশন চেয়ে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের কাছে চিঠি পাঠিয়েছেন আপিল বিভাগের বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক।

পিএলআরে যাবার আগে বিচারপতি শামসুদ্দিন রোববার সুপ্রীম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারক হিসেবে এই চিঠি দেয়ায় তোলপাড় সৃস্টি হয়েছে।
জানা গেছে, পেনশন প্রক্রিয়া আটকে গেছে সুপ্রীম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরীর। গত ২৫ সেপ্টেম্বর সুপ্রীম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল সৈয়দ আমিনুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক চিঠির মাধ্যমে তাকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে।
ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরীর নিকট নিষ্পত্তিকৃত মামলার (হাইকোর্ট ও আপিল বিভাগ) অপেক্ষমাণ রায় স্বাক্ষর না হওয়া পর্যন্ত তার পেনশনসংক্রান্ত কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা যাবে না। প্রধান বিচারপতির নির্দেশক্রমে বিষয়টি অবহিত করা হয় বলে ওই চিঠিতে উল্লেখ করা হয়।
এদিকে প্রধান বিচারপতির এই সিদ্ধান্তে বিস্ময় প্রকাশ করেন বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী। এই সিদ্ধান্তটি নজিরবিহীন উল্লেখ করে তিনি প্রধান বিচারপতিকে একটি চিঠি দেন।
এ সিদ্ধান্ত বাতিল না করলে আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হবে বলেও চিঠিতে উল্লেখ করেন বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী। এর অংশ হিসেবে রোববার তিনি রাষ্ট্রপতির কাছে প্রধান বিচারপতির অভিসংশন চেয়ে চিঠি লিখলেন।
এদিকে রোববার বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরীর বিদায় সংবর্ধনা আয়োজন নিয়ে সুপ্রীম কোর্ট আইনজীবী সমিতির বৈঠক আজ ভণ্ডুল হয়ে গেছে বলে জানা গেছে।
সরকার সমর্থক আইনজীবীদের একটি অংশ এই বিচারককে বিদায়ী সংবর্ধনা দেয়ার জন্য বৈঠক ডাকলে বিএনপিপন্থী সুপ্রীম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নেতারা এতে বাধা দেন। তারা আইনজীবী এমইউ আহমেদ হত্যার জন্য বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরীকে দায়ী করে বিরোধিতা করলে সভাটি ভণ্ডুল হয়ে যায়।
উল্লেখ্য, আগামী ১ অক্টোবর অবসরে যাবেন বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী। তবে ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে সুপ্রীম কোর্টের অবকাশ শুরু হওয়ায় ১৭ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার তার শেষ কর্মদিবস। যুগান্তর।

 

 

http://www.jugantor.com/current-news/2015/09/13/323292