ব্রেকিং নিউজ

সন্ধ্যা ৭:৪৭ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ১৯শে জুলাই ২০১৮ ইং

ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ফাইল ফটো

‘প্রধানমন্ত্রী বুঝেছেন নির্বাচনে বিএনপিকে লাগবে’ – ফখরুল

বিএনপিকে বাদ দিয়ে নির্বাচন হবে না বুঝতে পেরেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনে অংশ নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শুক্রবার এক ইফতারপূর্ব আলোচনা সভায় সুইডেনে সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপি মহাসচিব এই মন্তব্য করেন।

রাজধানীর বিজয় নগরে হোটেল ’৭১ এ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ন্যাশনাললিস্ট এক্স স্টুডেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের (রুনেসা) উদ্যোগে এই আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল হয়।

সংগঠনের সভাপতি ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ বাহাউদ্দিন বাহারের সভাপতিত্বে ও সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোকাম্মেল কবিরের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব, রাকসুর সাবেক ভিপি রুহুল কবির রিজভী।

মির্জা ফখরুল বলেন, তিনি (প্রধানমন্ত্রী) সুইডেনে গিয়ে বিএনপিকে আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার আহ্বান জানাচ্ছেন। খুব আনন্দের কথা। আপনার মুখ থেকে আমাদেরকে অংশগ্রহণের কথা আগে কখনো শুনিনি, শুনলাম। এতে কিছুটা আনন্দিত হয়েছি এজন্যে যে, তাহলে আপনি বুঝতে পেরেছেন বিএনপি ছাড়া নির্বাচন হবে না।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচন বয়কটের বিষয়টি তুলে ধরে মির্জা ফখরুল বলেন, সেখানে (সুইডেন) গিয়ে যখন তিনি (প্রধানমন্ত্রী) গণতন্ত্রের কথা বলেন, সেখানে গিয়ে যখন তিনি লেসেন দিতে চান, ছবক দিতে চান, তখন নিঃসন্দেহে আমরা আপত্তি শুধু করবো না, প্রতিবাদ করবো। সেখানে আপনি যে কথাটা বলেছেন, আমরা (বিএনপি) যেন ভুল না করি, যেন নির্বাচনে যাই। আমরা তো নির্বাচনে যেতে চেয়েছি। আপনারা চাতুরি করে, প্রতারণা করে, জনগণকে বিভ্রান্ত করে ত্রয়োদশ সংশোধনী বাতিল করে দিয়ে পঞ্চদশ সংশোধনী করলেন। অর্থাৎ কেয়ারটেকার সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে দিয়ে আবার দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন আনলেন। তখন আমরা যে আন্দোলন করেছি, সেই আন্দোলনে আমরা একা ছিলাম না, দেশের সমস্ত রাজনৈতিক দল ছিল, দেশের মানুষ ছিল এবং সেই কারণে সেদিন জাতীয় পার্টির একটা অংশ ছাড়া আপনারা কাউকে আপনাদের সঙ্গে পাননি।

বর্তমান ‘একই অবস্থা বিরাজ’ করছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, আমরা এখনও দেখতে পারছি, এই সরকার একদলীয় শাসন ব্যবস্থা করতে চাচ্ছে, একতরফা নির্বাচনই করতে চাচ্ছে। আমরা বলতে চাই, এবার একতরফা নির্বাচন হবে না। অবশ্যই নির্বাচনের সময়ে আপনাকে এমন একটা সরকার নিয়ে আসতে হবে, যে সরকার নিরপেক্ষভাবে একটা নির্বাচন পরিচালনার জন্য নির্বাচন কমিশনকে সাহায্য করবে। সেজন্য আমরা সহায়ক সরকারের কথা বলেছি। আমরা বলেছি যে, নির্বাচনকালীন সময়ে একটা নিরপেক্ষ সরকার থাকতে হবে। দলীয় সরকার থাকলে কখনোই সুষ্ঠু, অবাধ, নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে না।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, কিছুদিন পরে আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়া সহায়ক সরকারের রূপরেখা দেবেন। আমরা বিশ্বাস করি, আওয়ামী লীগের যদি শুভ বুদ্ধির উদয় হয়ে থাকে, তাহলে সেটা মেনে নিবে। গায়ের জোরে ২০১৪ সালে নির্বাচন করে দেশকে অনিশ্চয়তার দিকে ঠেলে দিয়েছেন, গণতন্ত্রের কবর দিয়েছেন।