ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ১:২৭ ঢাকা, সোমবার  ২৪শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

“প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে সমগ্র জাতি উৎকণ্ঠিত, হতাশ ও বিস্মিত”

সাম্প্রতিক সময়ে সংঘটিত হত্যাকান্ড ‘আইএস’ ঘটিয়েছে এমন স্বীকারোক্তির জন্য সরকারের উপর প্রচন্ড চাপ রয়েছে-প্রধানমন্ত্রীর এমন তথ্য ও বক্তব্যে সমগ্র জাতি উৎকণ্ঠিত বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মুখপাত্র ড. আসাদুজ্জামান রিপন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জাতীয় সংলাপের আহ্বান প্রত্যাখান করায় দেশবাসী হতাশ ও বিস্মিত হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন রিপন।
রোববার বিকালে নয়াপল্টনের বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব মন্তব্য করেন।
বিএনপি ইতিবাচক রাজনীতি করে বলেই- জাতীয় সংলাপের প্রস্তাব দেয়া হয়েছিলো উল্লেখ করে ড. আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, জাতীয় ঐক্যের স্বার্থে সংলাপের আহবান জানানো বিরোধী দলের কোন দুর্বলতা নয়। সরকারের সৌভাগ্য যে, বিরোধী দলের উপর নির্মম-নির্যাতনের স্টীম রোলার চালানোর পরও দেশ জাতির কথা চিন্তা করে আমরা সংলাপে বসার প্রস্তাব দিয়েছি।
তিনি বলেন, বর্তমান রাজনৈতিক সংকট উত্তরণে দেশ ও জনগণের কাছে দায়বদ্ধতা থেকেই জাতীয় ঐক্যের স্বার্থে বিএনপি চেয়ারপারসন একটি জাতীয় সংলাপের আহবান জানিয়েছিলেন। কিন্তু দু:খের বিষয় শাসক দলের কয়েকজন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী এই প্রস্তাবনাকে কটাক্ষ করেছেন। এমনকি সরকার প্রধানও মন্ত্রীদের কথাই পুণরুচ্চারণ করেছেন। যা দেশবাসীকে সত্যিই হতাশ ও বিস্মিত করেছে।
সাম্প্রতিক সময়ে সংঘটিত হত্যাকান্ড ‘আইএস’ ঘটিয়েছে এমন স্বীকারোক্তির জন্য সরকারের উপর প্রচন্ড চাপ রয়েছে-প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে রিপন বলেন, এ তথ্যে সমগ্র জাতি উৎকণ্ঠিত হয়েছে। কারন জাতি’র উপলব্ধি করতে কষ্ট হওয়ার কথা নয়-এর পরিণাম বাংলাদেশের জন্য কতটা বিপর্যয় বয়ে আনতে পারে। এ জন্যই আমরা চাই-সবাই মিলে বাংলাদেশের উপর আসন্ন বিপদের হুমকিকে মোকাবেলা করি।
সরকারের প্রতি আমাদের আহবান জানিয়ে রিপন বলেন, আসুন, অতীতাশ্রয়ী রাজনীতির ঘৃণা উদ্রেককারী বক্তব্য পরিহার করে দেশ ও গণতন্ত্রকে এবং গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে পূণ:নির্মানের জন্য আমরা একমত হই। ঐকমত্যের ভিত্তিতে ভবিষ্যতের বাংলাদেশকে বিনির্মানে সচেষ্ট হই।
রিপন বলেন, আমরা শুরু থেকেই বলেছি-যুদ্ধপরাধী-মানবতাবিরোধী অপরাধের সুষ্ঠু ও আন্তর্জাতিক মানের বিচার চাই। এ প্রশ্নে আমাদের সমর্থন রয়েছে।  তারপরেও নিছক রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে শাসকদল এক ধরণের ‘গোয়েবলসীয়’ প্রোপাগান্ডা অব্যাহত রেখেছে।