বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, নির্বাচন ইতিমধ্যে প্রহসনে পরিণত হয়েছে, তামাশায় পরিণত হয়েছে। এমন একটি পরিস্থিতি তৈরি করা হয়েছে, যেখানে সুষ্ঠু নির্বাচনের আর কোন সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না।

মির্জা ফখরুল বলেন, প্রধানমন্ত্রী বিএনপির টাকা নিয়ে নৌকায় ভোট দিতে যে আহ্বান জানিয়েছেন তা সম্পুর্ণ অনৈতিক। বিএনপি ব্যালট ছাপাচ্ছে বলেও তিনি গুজব ছড়াচ্ছেন। এটা অপরাধ। এছাড়া বিদেশে বসে বাংলাদেশে পুলিশ হত্যার ষড়যন্ত্র চলছে বলে প্রধানমন্ত্রী যে বক্তব্য দিয়েছেন তা ভয়ানক অপরাধ। আশাকরি নির্বাচন কমিশন এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেবে।

আজ শুক্রবার সকালে রাজধানীর গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, বিচারবিভাগ উদ্দেশ্যমূলকভাবে আমাদের প্রার্থীদের প্রার্থীতা বাতিল করছে। নির্বাচন কমিশন চূড়ান্তভাবে বৈধ ঘোষনার পর নির্বাচন চলাকালে কারও প্রার্থিতা বাতিলের এখতিয়ার হাইকোর্টের আছে কিনা সেটা নিয়ে প্রশ্ন আছে।

দেশবাসী লক্ষ্য করছে, সরকার, নির্বাচন কমিশন, প্রশাসন ও বিচার বিভাগ গণতন্ত্র হত্যায় একজোট হয়েছে। ১০ বছর ধরে যে হামলা-মামলা ও গ্রেপ্তার-নির্যাতন চলছে নির্বাচন আসার পর সেটা বেড়ে গেছে। আমাদের প্রধান প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছে পুলিশ। সরকারকে সহায়তা করছে নিম্ন আদালত।

বিএনপির মহাসচিব দাবি করেন, যে আসনগুলোতে বিএনপির প্রার্থী থাকছে না সেখানে হয় অন্য কোন প্রার্থীকে ধানের শীষ প্রতীক দেয়া হোক বা নতুন করে তফসিল ঘোষনা করা হোক। কারন নির্বাচন কমিশন যাদের বৈধ করেছে আমরা তাদের মনোনয়ন দিয়েছি। ভুল আমাদের নয় তাই দায় নির্বাচন কমিশনের। –মানব জমিন