Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

ভোর ৫:১৬ ঢাকা, সোমবার  ১৯শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

প্রধানমন্ত্রীর চারটি প্রশ্ন?

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন নিহত ডা. শামারুখ মাহজাবীনের বাবা প্রকৌশলী নূরুল ইসলাম। এসময় প্রধানমন্ত্রী চারটি প্রশ্ন করেন। প্রশ্নগুলো হলো-১.এমন ঘরে, এমন ছেলের সঙ্গে মেয়ে বিয়ে দিলেন কেন?,  ২. যৌতুকলোভী এরকম একজন লোকের ঘর থেকে আপনার মেয়ে নিজে থেকে কেন বেরিয়ে আসলো না?, ৩. একটি কোয়ালিফাইড মেয়ে শ্বশুর-শাশুড়ির মন যুগিয়ে চলে কী লাভ হলো?  ৪.দ্বিতীয় পোস্টমর্টেম রিপোর্টে কী অবস্থা?

রোববার দুপুর ১২টায় যশোর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে একথা জানান প্রকৌশলী নূরুল ইসলাম।তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমার মেয়ে হত্যার বিষয়ে অবগত আছেন। গত ১৫ ডিসেম্বর রাতে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছি। তিনি আমাকে সাড় ১০ মিনিট সময় দিয়েছিলেন। আমার মেয়ের গলার দুই পাশে গলাটিপে ধরার দাগ আছে, এই ছবিটা হাত দিয়ে প্রধানমন্ত্রী  নিজে পরখ করেন। এসময় তিনি আফসোস করেন। এরপর তিনি আমাকে চারটি প্রশ্ন করেছেন। আমি প্রত্যেকটি প্রশ্নের জবাব দিয়েছি।একই সঙ্গে ৭১ পৃষ্টার একটি ফাইল হস্তান্তরের সময় প্রধানমন্ত্রী নিজে আমার হাত থেকে গ্রহণ করেছেন। তিনি আমাকে সব ধরণের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন।ডা.শামারুখ হত্যার বিচার দাবিতে মামলা ও তদন্তের সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে সাংবাদিকদের অবহিত করতে গিয়ে প্রকৌশলী নুরুল ইসলাম বলেন, গত ১৫ ডিসেম্বর রাত ৮টা ৫০মিনিটে গণভবনে সাক্ষাৎকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে চারটি প্রশ্ন করেছিলেন। প্রশ্নগুলো হলো-১.এমন ঘরে, এমন ছেলের সঙ্গে মেয়ে বিয়ে দিলেন কেন?,  ২. যৌতুকলোভী এরকম একজন লোকের ঘর থেকে আপনার মেয়ে নিজে থেকে কেন বেরিয়ে আসলো না?, ৩. একটি কোয়ালিফাইড মেয়ে শ্বশুর-শাশুড়ির মন যুগিয়ে চলে কী লাভ হলো?  ৪.দ্বিতীয় পোস্টমর্টেম রিপোর্টে কী অবস্থা?ডা. শামারুখের বাবা নূরুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমার কথা ধৈর্যের সঙ্গে শুনেছেন। তিনি সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন।নুরুল ইসলাম আরও বলেন, পুনঃময়নাতদন্তের প্রতিবেদন প্রভাবমুক্ত হবে এ কথা বলা কঠিন। চিকিৎসকদের কেন্দ্রীয় সংগঠনের (বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন) বিজ্ঞান বিষয়ক সম্পাদক ডা. জেসমিন আরা সাবেক এমপি খান টিপু সুলতানের স্ত্রী। তিনি নানাভাবে প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি।গত ১৩ নভেম্বর রাজধানীর ধানমন্ডির বাসায় নিহত হন যশোর-৫ আসনের সাবেক এমপি খান টিপু সুলতানের পুত্রবধূ ডা. শামারুখ মাহজাবিন সুমি। এ ঘটনায় ডা. সুমির বাবা প্রকৌশলী নূরুল ইসলাম মেয়ের শ্বশুর খান টিপু সুলতান, শাশুড়ি ও স্বামীর বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ এনে ধানমন্ডি থানায় মামলা করেন। আর ঢাকা লাশ ১৪ নভেম্বর রাতে যশোর এনে শহরের কারবালা কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়।গত ২৩ নভেম্বর ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে পুনঃময়নাতদন্তের আবেদন করেন ডা. সুমির পিতা প্রকৌশলী নুরুল ইসলাম। বিষয়টি আমলে নিয়ে ঢাকা মূখ্য মহানগর হাকিম ১৮ ডিসেম্বরের মধ্যে লাশ উত্তোলন করে পুনঃময়নাতদন্ত প্রতিবেদন জমাদানের নির্দেশ দেন। এ নির্দেশ পেয়ে তদন্ত কর্মকর্তা ঢাকার সিআইডির এএসপি মুন্সী রুহুল কুদ্দুসের উপস্থিতিতে ৪ ডিসেম্বর লাশ উত্তোলন করা হয়।