ব্রেকিং নিউজ

সকাল ১০:০১ ঢাকা, রবিবার  ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

প্রতি বছর বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপ টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হবে : প্রধানমন্ত্রী

Like & Share করে অন্যকে জানার সুযোগ দিতে পারেন। দ্রুত সংবাদ পেতে sheershamedia.com এর Page এ Like দিয়ে অ্যাক্টিভ থাকতে পারেন।

 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের জনপ্রিয় ফুটবল খেলার হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনতে প্রতি বছর বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপ টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হবে। ভবিষ্যতে বাংলাদেশ এই টুর্নামেন্টে জয়ী হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।
আজ রাজধানীতে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপের ফাইনাল খেলা শেষে ট্রফি বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, কেউ ভাবতে পারেনি বাংলাদেশ এই টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠবে। ফাইনাল খেলায় বাংলাদেশ চমৎকার খেলেছে এবং দুটি গোল করেছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন থেকে প্রতি বছর এই টুর্নামেন্ট আয়োজন করা হবে এবং আমরা আশা করি, বাংলাদেশ ভবিষ্যতে এই ট্রফি জয় করবে। আমরা সেই দিনের অপেক্ষায় রয়েছি। তিনি বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়দেরকে ভবিষ্যতে সেই লক্ষ্য নিয়ে খেলার আহ্বান জানান।
শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপের মাধ্যমে ফুটবল এদেশে নতুন মাত্রা পেয়েছে। আমি আশা করি, বাংলাদেশের ফুটবল সর্বত্র ছড়িয়ে পড়বে এবং বিশ্ব জয় করবে।
ফাইনালে চমৎকার খেলার জন্য বাংলাদেশ দলকে অভিনন্দন জানিয়ে তিনি বলেন, খেলায় জয়-পরাজয় আছে। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে এবং আরো এগিয়ে যাবে।
টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য মালয়েশিয়া দলকে অভিনন্দন জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের বন্ধুপ্রতীম দেশ ট্রফি জয় করেছে।
সুষ্ঠুভাবে টুর্নামেন্ট আয়োজনের জন্য প্রধানমন্ত্রী সংগঠক, আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা ও দর্শকদের ধন্যবাদ জানান। পরে প্রধানমন্ত্রী মালয়েশীয় ও বাংলাদেশ দলের কাছে চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ ট্রফি হস্তান্তর করেন। তিনি উভয় দলের খেলোয়াড়, কোচ ও অন্যান্যদের মধ্যে ব্যক্তিগত মেডেলও বিতরণ করেন।
অনুষ্ঠানে টুর্নামেন্ট কমিটির আহ্বায়ক অর্থমন্ত্রী এএমএ মুহিত, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর পুত্র ও আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়, যুব ও ক্রীড়া উপ-মন্ত্রী আরিফ খান জয়, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বিএফএফ) সভাপতি কাজী সালাহউদ্দিন এবং বিএফএফ-এর কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে প্রধানমন্ত্রী স্টেডিয়ামে ভিআইপি গ্যালারিতে বসে ফাইনাল খেলার দ্বিতীয়ার্ধ উপভোগ করেন এবং বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়দের করতালি দিয়ে উৎসাহ দেন। প্রধানমন্ত্রী লাল ও সবুজ রংয়ের শাড়ি পড়ে ৬টা ২৬ মিনিটে স্টেডিয়ামে প্রবেশ করেন।