ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৬:৩৮ ঢাকা, বুধবার  ১৯শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

তল্লাশির নামে 'নগ্ন' করা
পুলিশ কর্তৃক এক যুবককে মাদক তল্লাশির নামে 'নগ্ন' করা। ছবিঃ ফয়সাল মাহমুদ নীল

“পুলিশের কাছে সাধারণ মানুষ কতটা অসহায়”

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় প্রকাশ্যে দিবালোকে পুলিশ কর্তৃক এক যুবককে মাদক তল্লাশির নামে তাকে ‘নগ্ন’ করার এক ঘটনায় জনমনে পুলিশের প্রতি ক্ষোভ ও বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনাটি গতকাল বিকেলে ঘটেছে।

ঘটনাটির দৃশ্য ফায়সাল মাহমুদ নীল নামক একজন ব্লগার ও অনলাইন এক্টিভিস্ট ক্যামেরা বন্দি করেন। ক্যামেরা বন্দি করতে গিয়ে তিনিও পুলিশের হুমকির মুখামুখি হন। আর সেই অভিজ্ঞতা ও প্রকাশ্যে নগ্ন করার ঘটনাটি তিনি এক স্টাটাসে তার ফেসবুক টাইমলাইনে তুলে ধরেছেন।

তিনি ঘটনাটি টাইমলাইনে ছবিসহ তুলে ধরার পরে তার টাইমলাইন থেকে অনেকই তার বরাত দিয়ে কপি-পেস্ট করে সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজ নিজ টাইমলাইনে তুলে ধরেছেন। পাশাপাশি শেয়ার হয়েছে আজ বিকেল পর্যন্ত দুই হাজারেরও বেশি। আর এ ঘটনায় সোশ্যাল মিডিয়ায় কমেন্টস করে পুলিশকে ধিক্কার জানাছে অসংখ্য মানুষ। যেখানে পুরো পুলিশ প্রশাসন সমালোচনার মুখে পড়েছে।

সভ্য জগতে এহেন নির্বোধের মত আচরণ মেনে নেয়নি মানুষ। অভিযুক্ত পুলিশ কর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ জরুরি।

ফায়সাল মাহমুদ নীল ফেসবুক স্টাটাসে গতকাল ঘটনাটির বিবরণে যা লিখেছেনঃ

ফায়সাল লিখেছেন, বিকেলে টিএসসি যাওয়ার পথে দেখলাম সন্দেহভাজন এক ছেলেকে পুলিশ ধরে জোর করে প্যান্ট খুলতে বাধ্য করছে। পুলিশের সন্দেহ তার সাথে মাদক আছে, কিন্তু ছেলে বার বার বলছিল, স্যার আমার সাথে কিচ্ছু নেই। কিন্তু কে শোনে কার কথা, পুলিশের সেই অফিসার অর্ধশত মানুষের সামনে তাকে নগ্ন করল, তারপর কিছুই পেল না। ততক্ষণে ছেলেটা কান্না করছে, কাঁদতে কাঁদতে বলছে, স্যার কিছুই তো পেলেন না, আমাকে এত গুলা মানুষের সামনে প্যান্ট খোলাইছেন কেন! এ কথা শুনে, তার মা-বোন তুলে গালিগালাজ করছিল পুলিশ।

আমার কাছে ব্যাপারটা অন্যায় মনে হয়েছে, আমি মোবাইল বের করে ঘটনার এক পর্যায়ে ছবি তুলি। এসময় সেই পুলিশের অফিসার আমার দিকে তেড়ে এসে, আমার ফোনটা কেড়ে নেয়, এবং আমাকে বলতে থাকে, এই তুই ছবি তুললি কেন! তোকে ছবি তোলার অনুমতি কে দিয়েছে! এই মোবাইল এখনি তোর পুট** ঢুকিয়ে দিব শালারপুত। আমাকে চিনিস আমি কে? তোর মোবাইল এখনি ভেঙে ফেলব, বলেই সে আমার মোবাইল ভাঙার জন্য দুহাতে চাপ দেয়। তারপর সাথে থাকা কনস্টেবলকে বলতে থাকে, এই ওরে গাড়িতে তোল। এসময় আমি তাকে বলি, আচ্ছা থানায় নেন, যদি আমি অপরাধ করে থাকি! কিন্তু আপনি আমাকে গালি দিচ্ছেন কেন? এ কথা শুনে সে আমাকে বলে, তোকে মারি নাই এটাই অনেক। এছাড়াও সে যেসব শব্দ মুখ দিয়ে উচ্চারণ করেছে তা আমার পক্ষে লিখে প্রকাশ করা সম্ভব না।

প্রথমত, কোন সন্দেহভাজন ব্যাক্তিকে সন্দেহের ভিত্তিতে পুলিশ পাবলিক প্লেসে নগ্ন করতে পারেনা, আর এভাবে অকথ্য ভাষায় গালিও দিতে পারেনা। এটা কোন ভাবেই রাষ্ট্রীয় একটা সংস্থা যাদের কাজই জনগনণের নিরাপত্তা দেয়া তাদের কাজ হতে পারেনা। পুলিশের এমন আচরণে আমি বাকরুদ্ধ, ভাবছি সাধারণ মানুষ কতটা অসহায় কিছু সংখ্যক পুলিশের কাছে।

বিঃদ্রঃ সব পুলিশকে আমি একই মাপকাঠিতে মাপি না, আমার ফ্রেন্ডলিস্টে পুলিশের অনেক বড় ভাই আছে যাদের আমি প্রচন্ড শ্রদ্ধা করি, তারা সেটা ডিজার্ভ করে। তাই সবার কাছে অনুরোধ, কেউ গালাগাল করবেন না।

তল্লাশির নামে 'নগ্ন' করা

পুলিশ কর্তৃক এক যুবককে মাদক তল্লাশির নামে ‘নগ্ন’ করা। ছবিঃ ফয়সাল মাহমুদ নীল

এ বিষয়ে ফায়সাল মাহমুদ নীলের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানিয়েছেন, ৬ জুলাই বিকেল ৪:৪০ মিনিটের সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি-হাকিম চত্বর সংলগ্ন এলাকায় ঘটনাটি ঘটে।