ব্রেকিং নিউজ

সকাল ৮:০৭ ঢাকা, রবিবার  ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

নমুনা ফটো

পুরুষ নির্যাতন কেন আড়ালেই থেকে যায়!

আজকের নির্যাতিত নারী সমাজের জন্য অনেক সংগঠন এগিয়ে আসে। কিন্তু একবারও ভেবে দেখা হয় না পুরুষ শাসিত এই সমাজেই পুরুষও নির্যাতিত হতে পারে। ফলে ‍দিনের পর দিন তা আরও গুরুতর হচ্ছে। প্রতিদিন চুপচাপ মেনেও নিচ্ছেন অনেকে। নানা কারনে আড়ালে থেকে যাচ্ছে পুরুষ নির্যতনের ঘটনা। যেমন:-

লোক লজ্জার ভয়

একজন পুরুষ নারী দ্বারা শারীরিক ও মানসিক ভাবে নির্যাতিত হচ্ছেন দিনের পর দিন। এই ঘটনা কোন পুরুষ নিজে মুখে বলতে খুবই লজ্জাবোধ করেন। পুরুষ ভাবেন নারীর কাছে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতিত হওয়া আবার তা প্রকাশ পাওয়া অত্যন্ত লজ্জাজনক। শুধুমাত্র এই কারনে পুরুষ নির্যাতনের ঘটনা ধামাচাপা দেয়া হয়।

পারিবারিক সহযোগিতার অভাব

পরিবারের মুরুব্বীদের সহযোগিতার অভাবে পুরুষেরা চুপচাপ অনেক কিছুই মেনে নেন। নিজের ইচ্ছার বিরুদ্ধে অনেক কিছুই করে যান সংসারে। স্ত্রীর দাম্ভিকতা সহ্য করে চলতে হয় দিনের পর দিন। ফলে পুরুষের মনে আড়ালেই রয়ে যায়।

ঝামেলায় জড়ানোর ভয়

অনেকে পুরুষই নিজের স্ত্রীর দ্বারা নির্যাতন সহ্য করে নেন ঝামেলায় জড়িয়ে যাওয়ার ভয়ে। এক্ষেত্রে কেউ যদি তার স্ত্রীর সঙ্গে সম্পর্কছেদ করতে চান, তবে নানাভাবে নির্যাতনের শিকার হতে হয় পুরুষদেরকে। একজন নারী যখন তার স্বামীর বিরুদ্ধে নির্যাতনের মামলা দায়ের করেন এবং সম্পর্কছেদ করতে চান, তখন নিয়ম অনুযায়ী সকল ব্যবস্থা নেয়া হয়। কিন্তু একজন পুরুষ তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করতে চাইলে মামলা নেয়া হয় না। এভাবে পুরুষের উল্টো মামলায় জড়িয়ে যাওয়ার ঘটনাও কম নয়।

nirzatonউল্লেখ্য, গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে বিজিএমইএ ভবনের কনফারেন্স রুমে ‘চেঞ্জিং জেন্ডার নর্মস অব গার্মেন্টস ইমপ্লাইস (চ্যাঞ্জ)’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শ্রম প্রতিমন্ত্রী মজিবুল হক চুন্নূ বলেছেন, নারীরা নয় এখন পুরুষরাই নারীদের কাছে হ্যারাসমেন্টের শিকার হয়।

সেমিনারে গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয় বাংলাদেশের গার্মেন্টস কারখানায় ৮৪.৭ শতাংশ নারী বিভিন্নভাবে হ্যারাসমেন্ট হচ্ছে। প্রতিবেদনে উল্লেখিত তথ্যের প্রতিবাদ জানিয়ে শ্রমপ্রতিমন্ত্রী বলেন, এটি একটি উদ্ভট গবেষণা। এখানে তথ্যের ভুল আছে।

Like & share করে অন্যকে দেখার সুযোগ দিন