ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ১২:৩২ ঢাকা, রবিবার  ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

‘পুঁজিবাজারের ১,০৩,৮৩৩টি বিও একাউন্ট বন্ধ করা হয়েছে’

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল অবদুল মুহিত বলেছেন, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ১ লাখ ৩ হাজার ৮৩৩টি বেনিফিশিয়ারি ওনার (বিও) একাউন্ট বন্ধ করা হয়েছে।
তিনি আজ সংসদে সরকারি দলের সদস্য কামাল আহমেদ মজুমদারের এক প্রশ্নের জবাবে আরো বলেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নবায়ন ফি জমা না দেয়ায় এসব একাউন্ট বন্ধ করা হয়েছে।
সরকারি দলের সদস্য দিদারুল আলমের এক প্রশ্নের জবাবে মুহিত বলেন, ‘পুঁজিবাজারে ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের সহায়তা তহবিল’-এর জন্য বরাদ্দকৃত ৯শ’ কোটি টাকা ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক বরাবর ছাড় করা হয়েছে।
তিনি বলেন, ছাড়কৃত ওই অর্থ থেকে ২০১৫ সালের ৪ নভেম্বর পর্যন্ত ৭৩৩ কোটি ৮৯ লাখ টাকার ঋণের আবেদন পাওয়া যায়। এরমধ্যে ৬৭৮ কোটি ১৫ লাখ টাকা ঋণের অনুমোদন দেয়া হয়। অনুমোদনকৃত ঋণের ৬১৬ কোটি ৬৩ লাখ টাকা ইতোমধ্যে বিতরণ করা হয়েছে এবং ৬১ কোটি ৫২ লাখ টাকা বিতরণের অপেক্ষা রয়েছে।
অর্থমন্ত্রী বলেন, সর্বশেষ কিস্তির ৩শ’ কোটি টাকা গত ২০১৫ সালের জুনে ছাড় করা হয়েছে, যার প্রেক্ষিতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ঋণপ্রাপ্তির আবেদনের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করছে।
আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেন, পুঁজিবাজারে ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের জন্য সহায়তা তহবিলে বরাদ্দকৃত ৯শ’ কোটি টাকা বিতরণের লক্ষ্যে সরকার কর্তৃক প্রণীত নীতিমালা অনুযায়ী ঋণ প্রদানের জন্য আরোপিত শর্তসমূহের ব্যাপারে ঋণগ্রহণকারী আগ্রহী প্রতিষ্ঠানসমূহ থেকে অদ্যাবধি কোন নেতিবাচক মন্তব্য পাওয়া যায়নি।
নিজাম উদ্দিন হাজারীর অপর এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী জানান, সরকারি ও বেসরকারি খাতে মোট বিনিয়োগের পরিমাণ ২০১১ সালের জুন পর্যন্ত ২ হাজার ৫১১ দশমিক ৩ বিলিয়ন টাকা যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেয়ে ২০১৫ সালের জুন শেষে ৪ হাজার ৩৮৪ দশমিক ৪ বিলিয়নে দাঁড়িয়েছে।
তিনি বলেন, ২০১১ সালের জুনে দেশে মোট বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল জিডিপির ২৭ দশমিক ৪ শতাংশ যা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পেয়ে জুন-২০১৫ শেষে জিডিপির ২৯ দশমিক ০ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।