Sheersha Media

ব্রেকিং নিউজ

রাত ১:৫৫ ঢাকা, বৃহস্পতিবার  ২২শে নভেম্বর ২০১৮ ইং

প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম

পাক রাষ্ট্রদূতের বই বলছে ‘পাকিস্তান-খালেদা জিয়ার বক্তব্য একই’

প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম বলেছেন, পাক রাষ্ট্রদূতের বই বলছে ‘পাকিস্তান-খালেদা জিয়ার বক্তব্য একই’। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় যারা বিশ্বাস করেন না তাদের বাংলাদেশে স্থান নেই।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি। তিনি আমাদের মাঝে নেই এটি আমরা ভাবতে পারিনা। তিনিই বাংলাদেশ, তিনি জাতির জনক। স্বাধীন দেশে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীরা আস্ফালন করবে এটা হতে দেয়া যায় না।

আজ সেগুনবাগিচার মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে অনির্বাণ ’৭১ আয়োজিত স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকার ‘মুজিব নগর সরকার’ গঠনের ৪৫তম বার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মুজিবনগর সরকারের অন্যতম রূপকার ব্যারিস্টার এম আমীর-উল-ইসলামের সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুত, জ্বালানী খনিজ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী বীর বিক্রম, মাহবুবউদ্দিন আহম্মদ এসপি (অব.) বীর বিক্রম ও শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদের কন্যা মাহজাবিন আহমেদ মিমি।

এইচটি ইমাম বলেন, ১৯৭৫ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশকে উল্টো পথে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। তারা বাংলাদেশের ইতিহাসকে পাল্টাতে চেয়েছিল।

তিনি বলেন, পাকিস্তানের একজন রাষ্ট্রদূত একটি বই লিখেছে। বইটির প্রকাশনা উৎসব হয়নি। বইটি আমাদের হস্তগত হয়েছে। তিনি যা লিখেছেন, পাকিস্তান রাষ্ট্র আর বেগম জিয়া যা বলছে তাদের সবার একই সুত্রে গাথা। বাংলাদেশকে তারা মেনে নিতে পারেনি।

এইচটি ইমাম বলেন, বাংলাদেশের প্রথম সরকার নাম ‘গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার’। যারা ইতিহাস বিকৃত করে বলে মুজিবনগর সরকার, প্রবাসী সরকার। এ কথাটি ঠিক নয়।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা বা যাত্রা শুরু হয়েছিল ১০ এপ্রিল থেকে। যার বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশের যাত্রা শুরু বা ঘোষণা দেয়া হয় হয় ১৭ এপ্রিল। ১০ এপ্রিল থেকে সরকারের কার্যক্রম শুরু হয়।

তিনি বলেন, পুরুষদের মধ্যে রাজাকার সৃষ্টি হয়েছে। তবে মহিলাদের মধ্যে কোন রাজাকার পাকিস্তানীরা তৈরী করতে পারিনি।

ড. তৌফিক এলাহী বলেন, আমরা খুব ভাগ্যবান কারণ আমরা মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেছিলাম। মুক্তিযুদ্ধ দেখার সৌভাগ্য আমার হয়েছে।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণই কার্যকর হয়েছে। ঐ ভাষণে বঙ্গবন্ধু সব কথা বলেছেন। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের আকাশে পাকিস্তানী বোমারু বিমান উড়েছিল। ঐদিন তাদের পরিকল্পনা ছিল জনসভায় বোমা ফেলার।

তৌফিক এলাহী বলেন, ’৭১-এ সেদিন পাকিস্তানী শাসনের পরিবর্তে বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর শাসন চলতো। ক্ষমতা ছিল বঙ্গবন্ধুর হাতে।

তিনি বলেন, বৈদ্যনাথ তলায় যেখানে বাংলাদেশ সরকারের শপথ হয়েছিল সেখান থেকে পলাশী আম্রকানন দূরে নয়। একদিকে বাংলার সূর্য অস্তমিত হয়েছিল আম্রকাননে আর বৈদ্যনাথ তলায় বাংলার সূর্য উদিত হয়েছিল।