ব্রেকিং নিউজ

দুপুর ২:০২ ঢাকা, মঙ্গলবার  ২২শে মে ২০১৮ ইং

পশুর হাটের ইজারার শর্ত ভঙ্গে “আইওয়াশ” ব্যবস্থা নিচ্ছে সিটি করপোরেশন

image_136944.eid goru

সড়কে গরুর হাটের ফাইল ফটো

শীর্ষ মিডিয়া ২৪ অক্টোবর ঃ    ইজারার শর্ত ভঙ্গ করায় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) আওতাধীন অস্থায়ী কোরবানির পশুর হাট ইজারাদারদের জামানত বাজেয়াপ্ত হচ্ছে। একই সঙ্গে তাদের নামও কালো তালিকাভূক্ত করা হচ্ছে বলে প্রচার করা হচ্ছে ভবনে, অনুরূপভাবে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনও (ডিএনসিসি)  ইজারার শর্ত ভঙ্গের অভিযোগে কারণ দর্শাও নোটিশ জারী করেছে।
গত ১৩ অক্টোবরের ডিএসসিসি নিয়মিত সভায় এতদ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত হয়। একই সঙ্গে উত্তর সিটি করপোরেশনের ৭টি হাটের ইজারাদারকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেয়া হয়েছে।   সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়,  বাস্তবতা হচ্ছে  ব্যবস্থাপনাগত ত্রুটির জন্য খোদ মন্ত্রি পর্যায় থেকে ক্ষোভ জানানোর পরিপ্রেক্ষিতে আইওয়াশ স্বরূপ কারণ দর্শাও নোটিশ পর্যন্তই ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়টি সিমাবদ্ব থাকবে, কারো জামানত বাজেয়াপ্ত করতে পারবে বলে মনে হয় না, কারণ দলীয় নেতা কর্মীদের পিছনে খুটির জোর আছে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) আওতাধীন ১০টি হাটের সব কটি ইজারা নিয়েছিলেন ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা। সাদেক হোসেন খোকা মাঠের হাট পেয়েছিলেন সাবেক ৭৮ নম্বর ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ আলী। মেরাদিয়া বাজার খিলগাঁওয়ের হাট পেয়েছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণের স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবিএম আহমেদউল্লাহ। উত্তর শাহজাহানপুর খিলগাঁও রেলগেট বাজার সংলগ্ন মৈত্রী সংঘের হাট পেয়েছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূইয়ার পৃষ্ঠপোষকতাপ্রাপ্ত মো. নূরের নবী ভূইয়া নবী রাজু। পোস্তগোলা শ্মশানঘাট হাট পেয়েছিলেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা হাজী মো. রুবেল। রহমতগঞ্জ খেলার মাঠ, ধুপখোলা ইস্ট অ্যান্ড কাব এবং ব্রাদার্স ইউনিয়নের মাঠ ক্লাব পরিচালনাকারীদের নামে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এসব ক্লাব পরিচালনা করেন স্থানীয় ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা। এছাড়াও লালবাগের মরহুম হাজী দেলোয়ার হোসেন খেলার মাঠ ও তৎসংলগ্ন এলাকা, কামরাঙ্গীরচর ইসলাম চেয়ারম্যানের বাড়ির মোড় থেকে বুড়িগঙ্গা বাঁধ সংলগ্ন জায়গা ও ঝিকাতলা-হাজারীবাগ হাটটিও ইজারা পেয়েছে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরা।

এ বিষয়ে ডিএসসিসির সূত্র জানায়,শর্ত ভঙ্গ করায় ডিএসসিসির ১০টি হাটের মধ্যে এবার ৬ থেকে ৭ জন ইজারাদারের জামানত বাজেয়াপ্ত করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে ফাইল তৈরি হয়েছে। প্রশাসকের স্বাক্ষর হলেই তা কার্যকর হবে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ৭টি হাটের চিত্রও একই। আওতাধীন আগারগাঁও বস্তিসংলগ্ন হাটটি ইজারা পেয়েছিলেন যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা এসএম জাহিদ। বনানী কাকলী রেলওয়ে স্টেশনসংলগ্ন হাটটি পেয়েছিলেন ১৯ নম্বর ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফারুক রাজ।  উত্তরা ১১ ও ১৩ নম্বর সেক্টর সোনারগাঁও জনপদসংলগ্ন হাটটি পেয়েছিলেন মো. শফিক অ্যান্ড ব্রাদার্স। প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী উত্তরা থানা আওয়ামী লীগের অর্থ সম্পাদক মো. শফিকুর রহমান।  বারিধারা জে ব্লকের বাইপাস সড়কসংলগ্ন হাটটি পেয়েছিলেন ভাটারা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী নজরুল ইসলাম। মিরপুর সেকশন-৬ ইস্টার্ন হাউজিং সংলগ্ন হাটটি পেয়েছেন লুৎফর রহমান। উত্তরা আজমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠের হাটটি পেয়েছিলেন উত্তরা থানা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আফসারউদ্দিন খান।

উল্লেখ্য , নির্ধারিত সময়ের আগে হাট না বসানো, নির্দিষ্ট সীমারেখার মধ্যে হাট বসানো, হাটের কার্যক্রম শেষে পশুর বর্জ্য, বাঁশ ও খুঁটি অপসারণসহ বিভিন্ন শর্তে প্রতিবছর রাজধানীর অস্থায়ী কোরবানির পশুরহাট ইজারা দেয়া হয়। ইজারাদাররা প্রায়শই সে শর্ত মানেন না।  বিষয়টি নিয়ে গণমাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনা হয়।